আজ ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

085631amar

এবার নতুন বৈশিষ্ট্যের করোনা, পাঁচদিনেই হাসপাতাল বানালো চীন

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম ব্যক্তি শনাক্ত হয়। এবার নতুন করে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছে হুবেই প্রদেশ।

স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, আগের থেকে অনেক দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে নতুন করোনার ঢেউ। আতঙ্কের বিষয় হলো নতুন বৈশিষ্ট্যের করোনাভাইরাস বেজিংয়ে পাওয়া গেছে।

২০২০ সালের শুরু থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়তে থাকে চীন থেকে। এ বছরও নতুন করে সংক্রমণের জেরে বিপাকে পড়ছে বেইজিং।

নতুন করে সংক্রমণ শুরু হওয়ায় হুবেই প্রদেশে পাঁচ দিনের মধ্যে হাসপাতাল তৈরি করে ফেলেছে চীনা প্রশাসন। এই হাসপাতালে রয়েছে দেড় হাজার শয্যা, ছয় হাজার পাঁচশ ঘর। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে যেন বেগ পেতে না হয়, সেজন্য আগাম তৈরি রাখা হলো বহু শয্যার হাসপাতাল।

এমন দ্রুততার সঙ্গে হাসপাতাল তৈরির উদাহরণ আগেও আছে। ২০২০ সালের শুরুতে চীনে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছিল করোনার সংক্রমণ, তখন মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে হাসপাতাল তৈরি করেছিল দেশটি।

এবার বেইজিংয়ের দক্ষিণে হুবেই প্রদেশের ন্যানগংয়ে এই হাসপাতাল তৈরি হয়েছে। এছাড়া হুবেই প্রদেশের রাজধানী শিঝিয়াঝুয়াং অঞ্চলে আরেকটি তিন হাজার শয্যার হাসপাতাল তৈরির কাজ চলছে।

গত বছর উহান শহরে প্রথম করোনার চিহ্ন খুঁজে পায় প্রশাসন। পরে ধীরে ধীরে সংক্রমণ কমে গেলেও মুক্ত হয়নি চীন। ন্যানগং প্রদেশে বর্তমানে ছয়শ ৪৫ জনের চিকিৎসা চলছে।

চীন সরকার অবশ্য নতুন ঢেউয়ের জন্য দায় চাপাচ্ছে বিদেশ থেকে আমদানি হওয়া বিভিন্ন দ্রব্য ও দেশে ফেরা মানুষের ওপর। সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, বিদেশ থেকেই এই রোগের নতুন ঢেউ চীনে এসে প্রবেশ করেছে। নতুন করে ২৪ ঘণ্টায় ১৩০ জন করোনা আক্রান্তের সন্ধান পেয়েছে চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন। তার মধ্যে ৯০ জন হুবেই প্রদেশের।

সূত্র: এপি