আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কোটি

এমপি খোকার বিরুদ্ধে ৫০ কোটি টাকার মানহানি মামলা সাবেক সাংসদের

প্রথমবার্তা প্রতিবেদক,নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল কায়সারের মৃত মা’কে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করায় এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে আদালতে মানহানির মামলা হয়েছে।

বুধবার (৩০ ডিসেম্বর) দুপুরে আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য কায়সার হাসনাত নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আহম্মেদ হুমায়ুন কবীরের আদালতে বাদি হয়ে ৫০ কোটি টাকার মানহানির মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার আসামি লিয়াকত হোসেন খোকা সোনারগাঁও আসনে মহাজোট থেকে মনোনীত জাতীয় পার্টির নির্বাচিত বর্তমান সংসদ সদস্য এবং পার্টির যুগ্ন-মহাসিচবের দায়িত্ব পালন করছেন।

মামলায় বাদি কায়সার হাসনাত অভিযোগ করেন, গত ২৬ ডিসেম্বর সোনারগাঁও পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডে দরপত এলাকায় একটি উন্নয়ন কাজের উদ্বোধনি অনুষ্ঠানের আলোচনা সভায় সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা তাকে ও তার মা মরহুম মমতাজ বেগমকে নিয়ে মিথ্যাচার করেছেন। এই সাংসদ অসৎ উদ্দেশ্যে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে এবং পারিবারিক ও রাজনৈতিক সুনাম নষ্ট করতে অসৎ পথ অবলম্বন করেছেন।

মামলায় বলা হয়, সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা ওইদিনের আলোচনা সভায় বলেছিলেন যে, ‘কায়সার সম্পত্তির জন্য নিজের মায়ের বিরুদ্ধে মামলা করে মাকে আদালতে দাঁড় করেছেন। যে সন্তান তুচ্ছ সম্পত্তির লোভে মায়ের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে, তার কাছে জনগণ কি আশা করতে পারে।’ সাংসদের এই বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে প্রচার হলে কায়সার হাসনাত ও তার পরিবারের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে বলে তিনি মনে করছেন।

কায়সার হাসনাত দাবি করেন, তার মায়ের বিরুদ্ধে তিনি কোন ধরণের মামলা করেননি। সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার বক্তব্য সম্পূণ্য মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও মানহানিকর। যার কারণে তিনি এই সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে ৫০ কোটি টাকার মানহানির মামলা করেছেন। মামলার বাদি কায়সার হাসনাত আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল জানিয়ে আদালতের কাছে ন্যায়বিচার দাবি করেন।

বাদির আইনজীবি মো: জসীম উদ্দিন আদালতে উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, কায়সার সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান। তিনি ছাড়াও তার দাদা এবং চাচা সংসদ সদস্য ছিলেন। তার বাবা ৪০ বছর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ছিলেন এবং মা ছিলেন সমাজসেবিকা। সংসদ সদস্যের এমন মিথ্যা বক্তব্যে পরিবারটির সুনাস নষ্ট হয়েছে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে রেকর্ড গ্রহণ করেছেন এবং পরবর্তী আদেশ দিবেন।