আজ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ভ্যাকসিন

করোনার ভ্যাকসিন নিলে ভ্রমণের অনুমতি দেবে যেসব দেশ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:করোনার ভ্যাকসিন চলে এসেছে বাংলাদেশেও। এরই মধ্যে অনেকেই ভ্যাকসিন নিয়ে দিব্যি সুস্থ আছেন। মহামারির কারণে অনেকেই দেশের বাইরে ঘুরতে যেতে পারেননি এতদিন।

 

তবে করোনার ভ্যাকসিন নিলেই আপনি এখন ঘুরতে যেতে পারবেন বিভিন্ন দেশে। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক, কোন কোন দেশে ঘুরতে যাওয়ার অনুমতি মিলবে করোনার প্রতিষেধক নিলে-

 

আইসল্যান্ড: বরফের দেশ আইসল্যান্ড। প্রচণ্ড ঠান্ডার কারণে সেখানকার জনসংখ্যাও বেশ কম। পর্যটকরা এসব দেশে বিশেষ বেড়াতে যান না। তবে ঠান্ডা সহ্য করতে পারলে এদেশ থেকে ঘুরে আসেতে পারেন। আইসল্যান্ডেও রাতে সূর্য দেখা যায়। জুন মাসে এই নিশীথ সূর্য সবচেয়ে ভালো করে দেখা যায়।

 

মার্চ ও সেপ্টেম্বর মাসে এখানে দিন এবং রাতের পুরোপুরি অর্ধেক অবস্থান। আর ডিসেম্বর মাসে দিনের মধ্যে ২০ ঘণ্টাই রাত। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, উত্তরমেরুর আকাশে অরোরার দৃশ্য না-কি বাকরুদ্ধ করে দেয় সবাইকে। করোনার প্রতিষেধক নেওয়া থাকলে বিনা কোয়ারেন্টাইনেই এদেশে ঘুরতে যেতে পারবেন। ১ মে থেকে এ নিয়ম চালু করতে চলেছে দেশটির সরকার।

 

সিসিলি: মাদাগাস্কারের উত্তর-পূর্বে অবস্থিত পূর্ব আফ্রিকার দ্বীপরাষ্ট্র সিসিলি। রাষ্ট্রটির নাম অনেকেরই অজানা। ছোট্ট রাষ্ট্রটি ১১৫টি দ্বীপ নিয়ে গঠিত। প্রাচীনকালে এটি ছিল এশিয়া এবং আফ্রিকার মধ্যে বাণিজ্য সংযোগকারী স্থান। এখানে জলদস্যুদের আস্তানাও ছিল অনেক। বর্তমানে সেখানকার জনসংখ্যা ১ লাখেরও কম।

 

ইস্ট-ইন্ডিয়া কোম্পানির সদস্যরা এ দ্বীপ ঘুরেই ভারতবর্ষে প্রবেশ করতেন। বহু ইতিহাসের সাক্ষী আফ্রিকার এ দ্বীপপুঞ্জ। এখানকার দৈনিক জীবনযাত্রার খরচও খুব কম। এদেশে বেড়াতে যেতে চাইলেও করোনা প্রতিষেধক লাগবে।

 

রোমানিয়া: ইউরোপের এ দেশেও করোনার প্রতিষেধক নেওয়া থাকলেই ঘুরতে যেতে পারবেন। কৃষ্ণসাগরের ঠিক দক্ষিণে অবস্থিত দেশটি পর্যটকদের স্বর্গরাজ্য। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আধার এ দেশে সব সময়ই পর্যটকদের ভিড় লেগে থাকে। ভ্যাকসিন নেওয়ার পর ১০ দিন কাটলেই রোমানিয়া আপনাকে স্বাগত জানাবে।

 

সাইপ্রাস: ভূমধ্যসাগরের তৃতীয় বৃহত্তম দেশ সাইপ্রাস। ভৌগলিকভাবে এর অবস্থান এশিয়ায় হলেও রাজনৈতিকভাবে এটি ইউরোপের অংশ। ইউরোপের উন্নত দেশগুলোর মধ্যে সাইপ্রাস অন্যতম। আজও দেশের সর্বত্র ইতিহাসের নিদর্শনের ছড়াছড়ি।

 

চারপাশে সমুদ্রবেষ্টিত এ দ্বীপরাষ্ট্রে গেলে পাহাড়ের দেখাও পাবেন। প্রাচীনত্বের গন্ধে ভরপুর হলেও দেশে আধুনিকতার কমতি নেই। করোনা ভ্যাকসিন নেওয়া পর্যটকদের জন্য এদেশের দরজাও খোলা। মার্চ থেকেই সাইপ্রাস ভ্রমণে আর কোনো নিষেধাজ্ঞা থাকবে না।

 

লেবানন: ব্যাবিলন, বৈরুত নগরগুলো লেবাননেই অবস্থিত। দেশজুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে মিশর, ফিনিশিয়, গ্রিস, পারস্য, রোম, আরব, ক্রুসেডার এবং অটোমানের ধ্বংসাবশেষ।

 

সম্রাট নেবুকাটনেজারের তৈরি ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যানও বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের মধ্যে একটি। করোনা ভ্যাকসিন নেওয়া থাকলে এ দেশও ভ্রমণ করতে পারবেন পর্যটকরা।