আজ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনা

করোনায় প্রবাসীরা বৈধ পথে ১.৪৫ বিলিয়ন ডলার বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকরা করোনার সময়কালে বৈধ পথে প্রায় ১.৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিল। দেশগুলো শ্রমিক নিয়োগ বন্ধ করায় ভিসা কিনতে হুন্ডি বা অবৈধ পথে অর্থের পরিমাণ কমেছে।বুধবার ‘দ্যা আদার ফেস অব গ্লোবালাইজেশন: কভিড-১৯, ইন্টারন্যাশনাল লেবার মিগ্রান্টস অ্যান্ড লেফট-বিহাইন্ড ফ্যামিলিস ইন বাংলাদেশ’ বইয়ের প্রচারের ওয়েবিনারে এই গবেষণার তথ্য প্রকাশ করা হয়।

 

বাংলাদেশ সিভিল সোসাইটি ফর মিগ্রান্টস (বিসিএসএম) এবং রেফিউজি অ্যান্ড মিগ্র্যাটরি মোভমেন্টস রিসার্চ ইউনিট (রামরুর) যৌথভাবে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।বইটি কভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবের কারণে বাংলাদেশি অভিবাসীদের চ্যালেঞ্জ সম্পর্কিত গবেষণার তথ্য তুলে ধরেছে। সমীক্ষায় ২০০ জন পুরুষ ও মহিলা অভিবাসীর জরিপ করা হয়েছে, ২৫ জন স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসিত অভিবাসীদের এবং ৩০ জন অভিবাসী পরিবারের মহিলা বাম-পেছনে থাকা মহিলা সদস্যদের গভীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে।

 

রামরুর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ার অধ্যাপক তাসনিম সিদ্দিকী ওয়েবিনারে গবেষণার মূল তথ্য উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, ভিসা ব্যবসায় হ্রাসসহ বিভিন্ন কারণে গত বছরের অভ্যন্তরীণ রেমিট্যান্স উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে। সরকারের ২.০ শতাংশ নগদ প্রণোদনা, অভিবাসীদের থাকার অনিশ্চয়তা এবং স্থায়ীভাবে প্রত্যাবর্তন এবং মূলধনের পণ্য আমদানিতে হ্রাস (ওভার ইনভয়েসিং এবং ইনভয়েসিং) রেমিট্যান্স প্রবাহ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রেখেছে।তিনি আরো বলেন, যদিও দেশে অভ্যন্তরীণ রেমিট্যান্স বেড়েছে, জরিপ করা অভিবাসী প্রায় ৬১ শতাংশ পরিবার রেমিট্যান্স পাননি।পরিবারগুলো তাদের প্রতিদিনের ব্যয়কে বিভিন্নভাবে পরিচালনা করছে যেমন ঋণ নেওয়া, পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের আয়ের ওপর নির্ভর করা, অন্যের সাহায্য নেওয়া ইত্যাদি।

 

গবেষণায় দেখা গেছে, অভিবাসী শ্রমিকদের ক্ষেত্রে নৈতিক বিশ্বায়নের মানদণ্ড এখনো প্রকাশিত হয়নি। ফলপ্রসূ বহুপক্ষীয়তার অভাবে, উৎস এবং গন্তব্য দেশগুলি কভিড-১৯ পরিস্থিতি দ্বিপক্ষীয়ভাবে সম্বোধন করেছে। সঙ্কটের সময়ে কোনো অভিযোগের ডকুমেন্টেশন সিস্টেম চালু ছিল না।বইটিতে জরুরি অবস্থার সময় অভিবাসীদের সুরক্ষার জন্য মূল এবং গন্তব্য দেশ উভয়ই নীতিমালা প্রণয়নের প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

 

বিসিএসএমের চেয়ারম্যান ও রামরুর নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক সি আর আবরার অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেছেন।ব্র্যাকের চেয়ারপারসন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বইটি উন্মোচন করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে মাইগ্রেশন অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট সম্পর্কিত বাংলাদেশ সংসদ সদস্যদের ‘ককাসের চেয়ারপারসন ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী অধিকার কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।