আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

image 32767 1610620921

করোনা তদন্তে চীনে ডব্লিউএইচও’র গবেষক দল

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ করোনাভাইরাসের উৎস সম্পর্কে গবেষণা করতে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে পৌঁছেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) গবেষক দল। বেইজিং ও ডব্লিউএইচও’র দীর্ঘ আলোচনা শেষে প্রতীক্ষিত তদন্ত করতে আজ বৃহস্পতিবার চীনে পৌঁছে ১০ জন বিজ্ঞানীর দলটি। তারা দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় দেশটিতে করোনার প্রাথমিক প্রাদুর্ভাব নিয়ে করা গবেষণা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল এবং সি-ফুডের বাজারের লোকদের সঙ্গে কথা বলবেন।

২০১৯ সালের শেষ দিকে হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হয়। দীর্ঘদিনের মহামারি অবস্থা কাটিয়ে উহান যখন স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দলটি তখন সেখানে গবেষণা করতে গেলেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি তাদের একটি প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ডব্লিউএইচও’র দলটি উহানে গবেষণা করার আগে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে থাকবে। চীনা কর্মকর্তারা তাদের নমুনা পরীক্ষার পর সেটির প্রতিবেদন দেওয়ার পর প্রমাণ সাপেক্ষে এ কাজ শুরু হবে।

ধারণা করা হচ্ছে, করোনাভাইসাটি কোন প্রাণীর মাধ্যমে ছড়িয়েছে, গবেষকদের অনুসন্ধান ও কিছু প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষায় সেটি বের হয়ে আসবে।

ডব্লিউএইচও’র বৈশ্বিক প্রাদুর্ভাব এবং প্রতিক্রিয়া ইউনিটের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডেল ফিশার বিবিসিকে বলেছেন, তিনি আশা করেন তদন্তের জন্য যাওয়ায় বিশ্ব এটিকে বৈজ্ঞানিক সফর বিবেচনা করবে। তিনি বলেন, ‘এটা রাজনীতি বা দোষারোপ নয়, তবে একটি বৈজ্ঞানিক প্রশ্নের তলদেশে পৌঁছে যাওয়া।’

অধ্যাপক ফিশার আরও জানন, বেশির ভাগ বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেছিলেন ভাইরাসটি একটি প্রাকৃতিক ঘটনা’। কিন্তু তারপরও বিশ্বের কয়েকটি দেশ থেকে জোর দাবি উঠেছিল, করোনা চীন থেকেই ছড়িয়েছে এবং তা তাদের গবেষণাগারে তৈরি।

এদিকে, দীর্ঘ আট মাস পর চীন করোনায় নতুন এক রোগীর মৃত্যুর খবর দিয়েছে। দ্রুত গণ পরীক্ষা, কঠোর লকডাউন এবং ভ্রমণ বিধিনিষেধের মাধ্যমে ভাইরাসটিকে নিয়ন্ত্রণে আনছে চীন। সম্প্রতি দেশটির কয়েকটি শহরে নতুন করে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ঘটনা ঘটেছে। আক্রান্তের সংখ্যা উত্তর-পূর্বের বেইজিং ও হিলংজিয়াং প্রদেশকে ঘিরে উত্তর হুবেই প্রদেশে বেশি।

চলতি মাসের শুরুর দিকে ডব্লিউএইচও অভিযোগ করেছিল, তাদের এ সদস্যকে চীন থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছিল। এ ছাড়া ট্রানজিট বিড়ম্বনায় অপর এক তদন্তকারীদের চীনে প্রবেশ নিষেধ করা হয়েছিল। তবে বেইজিং বলেছিল, এটি ভুল বোঝাবুঝি ছিল। তদন্তের ব্যবস্থা এখনো আলোচনায় রয়েছে।

চীনের উহান শহর থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পরও দেশটি দাবি করেছিল, মহামারি ভাইরাসটি সেখানে জন্মেনি। বরং বাংলাদেশ ও ভারতের দিকে ইঙ্গিত দিয়েছিল দেশটি।