আজ ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

Screenshot 1 79

খুবির এক শিক্ষক বরখাস্ত, দু’জনকে অপসারণ

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে একাত্মতা পোষণকারী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) এক শিক্ষককে চাকরি থেকে বরখাস্ত এবং দু’জনকে অপসারণের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। শনিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১২তম সিন্ডিকেট সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়। তাদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের প্রধান অভিযোগ- শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উসকানি দেওয়া।

বরখাস্ত হওয়া শিক্ষক হলেন বাংলা ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক মো. আবুল ফজল এবং অপসারণ হওয়া শিক্ষকরা হলেন- ইতিহাস ও সভ্যতা ডিসিপ্লিনের প্রভাষক হৈমন্তী শুক্লা কাবেরী ও বাংলা ডিসিপ্লিনের প্রভাষক শাকিলা আলম।

বরখাস্ত ও অপসারণের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আত্মপক্ষ সমার্থনের সুযোগ পেয়েও ওই তিন শিক্ষক তাদের কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা বা দুঃখ প্রকাশ না করায় এবং অবাধ্যতা, গুরুতর অসদাচারণ, রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ও প্রশাসন বিরোধী কার্যক্রম ছাড়াও একাধিক অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ১৮ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের ২১১তম সভায় ওই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তির সিদ্ধান্ত হয়। পরে রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে তাদের স্ব স্ব নামে ‘কেনো বরখাস্ত ও অপসারণ করা হবে না’ মর্মে আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য চিঠি দেওয়া হয়। অভিযুক্ত তিনজন নির্ধারিত ২১ জানুয়ারি দুপুরের মধ্যে সেই চিঠির জবাব প্রদান করেন।

শনিবার অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ২১২তম সভায় পূর্ববর্তী ২১১তম সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত এবং আত্মপক্ষ সমর্থনে তিন শিক্ষকের জবাব নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়। শেষে সিন্ডিকেট তাদের বরখাস্ত ও অপসারণের সিদ্ধান্তে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সচিব ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস বলেন, ‘তিন শিক্ষকের মধ্যে বরখাস্ত হওয়া শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো আর্থিক সুযোগ-সুবিধা বা ক্ষতিপূরণ পাবেন না। তবে অপসারণ হওয়া দুই শিক্ষক আর্থিক সুযোগ-সুবিধা বা ক্ষতিপূরণ পাবেন।’

তিনি জানান, খুবির উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা, নতুন সদস্য প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-২ ওয়াহিদা আক্তার, প্রফেসর ড. মো. মনিরুল ইসলাম, প্রফেসর এ কে ফজলুল হক, প্রফেসর ড. মো. আব্দুল জব্বার, ড. নিহার রঞ্জন সিংহকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। এ ছাড়া সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. মুনতাসীর মামুন, প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা, প্রফেসর ড. মো. মাহবুবুর রহমানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ক্যাটাগরির সব সদস্য সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সিন্ডিকেটের অপর দুই সদস্য খুলনা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য বর্তমানে ইউজিসির সদস্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর ও খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. ইসমাইল হোসেন এনডিসি অনলাইনে এ সভায় অংশগ্রহণ করেন। সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রধান ফটক স্থাপনের নকশাও গৃহীত হয়। এ ছাড়া উপাচার্য ফিতা কেটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে একটি আর্কাইভের উদ্বোধন করেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য, ট্রেজারার, সিন্ডিকেট সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।