আজ ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

তোর মেয়েকে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছি, এসে নিয়ে যা’

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:ট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার সন্দ্বীপপাড়া এলাকায় পারিবারিক বিরোধেরে জেরে স্ত্রীর গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়ার ঘটনায় রাফেল (৩০) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

 

গতকাল শুক্রবার বিকেলে রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশ রাফেলকে স্থানীয়দের সহায়তায় গ্রেপ্তার করে বলে জানিয়েছেন রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের এএসপি মো. আনোয়ার হোসেন।

আগুনে ইয়াছমিনের শরীরের প্রায় ৪০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।তার পা, উরুসহ নিচের অংশ প্রায় পুরোটাই পুড়ে গেছে।
এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার রাঙ্গুনিয়া থানায় ইয়াসমিনের বাবা হারুন রশিদ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন রাঙ্গুনিয়া থানার ওসি মাহবুব মিল্কি।

তিনি বলেন, ইয়াসমিন ও রাফেলের সাত বছরের সংসারে চার বছর বয়সী এক সন্তান আছে। তারপরও প্রায়ই স্ত্রীকে নির্যাতন করতো রাফেল। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল শুক্রবার রাতে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে স্ত্রীর শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় রাফেল। পরে দগ্ধ গৃহবধূ ইয়াছমিনকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন শামীম জানান, ‘কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে স্ত্রীর শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় রাফেল। গায়ে আগুন দেয়ার সময় অসহায় ইয়াসমিন চিৎকার প্রাণভিক্ষা চাইলেও স্বামী রাফেলের মন গলেনি। উপায় না দেখে প্রাণে বাঁচতে ওই নারী ঘরের বাইরে বেরোতে চাইলেও বাধা দেয় অভিযুক্ত স্বামী। একপর্যায়ে আগুন নিভে যায়।

সহকারী পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন শামীম বলেন, শুধু পুড়িয়ে ক্ষান্ত হননি রাফেল। এরপর স্ত্রীর পোড়া শরীর থেকে চামড়া তুলে নিতে থাকেন। অন্যদিকে ভিকটিমের বাবা-মাকেও ফোনে তার চিৎকার শোনায়। এতো রাতে জামাইর ফোন পেয়ে উৎকণ্ঠিত শাশুড়ি ফোন তুলতেই, তাকে সোজা জানিয়ে দেন, ‘তোর মেয়েকে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছি। এসে নিয়ে যা’।

সহকারী পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন আরও বলেন, শুক্রবার বিকেলে পালানোর চেষ্টা করলে আসামি রাফেলকে স্থানীয়দের সহায়তায় গ্রেপ্তার করে পুলিশ। প্রেপ্তারের বিষয়ে তার কোনও বিকার নেই। থানাহাজতে গরুর মাংস দিয়ে ভাত খাওয়ার আবদার করে পুলিশের কাছে।’

চমেক বার্ন ইউনিটের প্রধান ডা. রফিক উদ্দিন বলেন, আগুনে ইয়াসমিনের শরীরের ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। বর্তমানে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।