আজ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ইউক্রেন

দিশেহারা ইউক্রেনে গর্ভ ভাড়া দেওয়া মায়েরা

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ পূর্ব ইউরোপের দেশ ইউক্রেন ‘সন্তান তৈরির কারখানা’ হিসেবে বেশ পরিচিতি পেয়েছে। নিঃসন্তান বিত্তবান দম্পতিরা চাইলেই সেখানে গিয়ে সারোগেসি বা গর্ভ ভাড়ার মাধ্যমে ছেলে বা মেয়ের বাবা-মা হতে পারেন।

 

তবে ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের ফলে দেশটিতে শত শত সারোগেট মা ও শিশু আটকা পড়েছে। এতে বিপাকে পড়েছে বহু দম্পতি। ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার পর একটি সন্তানের জন্য ব্যাকুল দম্পতিরা ভীষণ যন্ত্রণার মধ্যে পড়েছেন।

 

কারণ, ইউক্রেনের সারোগেট মায়েরা সন্তানসহ সেখানে আটকা পড়েছেন। এ অবস্থায় আতঙ্কিত অভিভাবকরা ইউক্রেনে প্রবেশ করতে পারছেন না এবং তাদের নবজাতকদের নিরাপদে সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন।

 

এ ছাড়া ইউক্রেনে চিকিৎসা নেওয়া দম্পতিরা ভবিষ্যতের বিষয়ে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছেন। ইউক্রেনীয় সারোগেটের মাধ্যমে দুই সপ্তাহ আগে এক ব্রিটিশ দম্পতির যমজ সন্তান হয়েছে। রাশিয়ার হামলার কারণে নবজাতকসহ তারা কিয়েভে আটকা পড়েছিলেন।

 

বোমা হামলার প্রথম দিন তাদের বাচ্চাদের ইউক্রেনের জন্মনিবন্ধন দেওয়ার কথা ছিল। মা আনা (ছদ্মনাম) বলেন, কিয়েভে যুদ্ধের ঠিক মাঝখানে আমরা ছিলাম। সেট খুবই ভয়াবহ ছিল।

 

অবশেষে ১ মার্চ এ দম্পতি তাদের যমজ সন্তানসহ পোল্যান্ডে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছিলেন এবং বহু ঘণ্টা অপেক্ষার পর তারা নিরাপদে সীমান্ত পার হতে পেরেছিলেন।

 

তাদের মতো বিভিন্ন দেশের বহু দম্পতি যারা সারোগেসির মাধ্যমে ইউক্রেনে সন্তান জন্ম দিচ্ছেন, তারাও একই ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন। প্রায় ৪০ জন ইউকে দম্পতি মনে করেন, ইউক্রেনে বর্তমানে একজন সারোগেট মা তাদের সন্তান বহন করছেন।

 

এ ছাড়া ১৩০ জনের ভ্রূণ দেশে সংরক্ষণ করা হয়েছে। তারা ইউক্রেনে চিকিৎসার জন্য যেতে পারছেন না। গত কয়েক বছরে বাবা-মা হওয়ার আকাঙ্ক্ষায় থাকা অনেকেই ইউক্রেনে যাচ্ছেন। প্রতি বছর সেখানে কয়েক হাজার শিশুর জন্ম হচ্ছে এই পদ্ধতিতে। খবর আই নিউজের।