আজ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

165411KK

নামাজের আগে জঙ্গিবাদের কুফল নিয়ে বয়ানের আহ্বান ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ জুমার নামাজের বয়ানে এবং প্রতিনিয়ত মসজিদে নামাজের আগে জঙ্গিবাদের কুফল সম্পর্কে জনগণকে জানাতে আলেমদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক এমপি। এতে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়বে বলে মনে করেন তিনি।

 

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন ভবনে ‘সহিংস চরমপন্থা প্রতিরোধে ইসলামিক বিজ্ঞদের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান এসব কথা বলেন।

 

তিনি বলেন, ইসলাম কখনোই জঙ্গিবাদ সমর্থন করে না। প্রতিনিয়ত মসজিদে নামাজের আগে বয়ানে জঙ্গিবাদের কুফল সম্পর্কে জনগণকে জানাতে হবে।

 

বারবার এখানে সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালিত হলে অনেকের মধ্যেই সচেতনতাবোধ জাগ্রত হবে। একমাত্র জনগণ সচেতন হলে জঙ্গিবাদ, মাদক থেকে অনেকাংশে রেহাই পাওয়া যাবে বলে মনে করেন তিনি।

 

জঙ্গিবাদ দূরে থাকলে দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে বলেও মন্তব্য করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী। তিনি জানান, জঙ্গিবাদ সম্পর্কে জনগণকে সচেতন রাখতে ইসলামিক ফাউন্ডেশনসহ ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে সারা দেশে সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।

 

ওয়াজ মাহফিলে উসকানিমূলক বক্তব্য বিষয়ে ভাবছে পুলিশ সেমিনারে মুক্ত আলোচনায় কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট প্রধান ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান, ওয়াজ মাহফিলে যারা উসকানিমূলক বক্তব্য দেন তাদের বিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে ভেবে দেখা হচ্ছে।

 

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে আল কায়দার কোনো অস্তিত্ব নেই, এমনকি কোনো শাখাও নেই। বিভিন্ন সময় নানা অপপ্রচার চালিয়ে অনেকে বাংলাদেশে আল-কায়েদার অস্তিত্ব প্রমাণ করার চেষ্টা করছে।

 

সিটিটিসি প্রধান বলেন, যে লোকটির ইসলাম সম্পর্কে স্পষ্ট জ্ঞান রয়েছে সে কখনোই জঙ্গিবাদে জড়ায় না। যাদের ইসলাম সম্পর্কে ভাসা ভাসা জ্ঞান, তারা জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ছে। আলেমরা বিভিন্ন সময় বয়ানের মাধ্যমে জনগণকে জঙ্গিবাদ, মাদক সম্পর্কে সচেতন করতে পারেন।

 

জনগণের কাছে ইসলামের সঠিক ব্যাখ্যা দিতে, জনগণকে সচেতন করতে আলেম-ওলামাদের ভূমিকা অনেক। জনগণ আলেমদের কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন। ইসলামের সঠিক ব্যাখ্যা জনগণের কাছে সঠিকভাবে তুলে ধরতেও আলেমরা ভূমিকা রাখছেন।

 

মনিরুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। আপাতত বাংলাদেশে বড় কোনো ধরনের জঙ্গি হামলার ঝুঁকি নেই। তবে সচেতন থাকতে হবে কেউ যেন নাশকতামূলক কার্যকলাপ চালাতে না পারে।

 

সবাই সবার জায়গা থেকে দায়িত্ব পালন করলে জঙ্গিবাদ দমন করা সম্ভব। জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশ বিশ্বের রোল মডেল। জঙ্গিবাদ থেকে বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ নিরাপদ। তবে শুধু অভিযানিক ব্যবস্থা জঙ্গিবাদ দমনে যথেষ্ট নয়। এটি প্রতিরোধে সচেতনতা বাড়ানোই সবচেয়ে বড় বিষয়।

 

জঙ্গিবাদ বিষয়ে আলেমদের মধ্যে বিভেদ রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন সিটিটিসি প্রধান। তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ যেহেতু একটি আদর্শের বিষয়, যারা জেনে বুঝে রাজনৈতিক মদতে জঙ্গিবাদের দিকে যাচ্ছে তাদের পুনর্বাসনের সুযোগ সীমিত।

 

যারা না বুঝে ধর্মের ভুল ব্যাখ্যায় ভুল পথে আদিষ্ট হয়, তারা যদি নিজেদের ভুল বুঝতে পারে তাহলে তাদের পুনর্বাসনের প্রচেষ্টা নেওয়া হবে। কারাগারগুলোতে কাউন্সিলিংয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

 

হলি আর্টিজানের মতো ঘটনা যেন না ঘটে, সে ব্যাপারে আলেম সমাজসহ সবাইকে সচেতন থাকার পরামর্শ দেন তিনি।সম্প্রতি কুষ্টিয়ায় ভাস্কর্য ভাঙচুরের পর আলেমদের নিয়ে এক পুলিশ কর্মকর্তার বক্তব্যের বিষয়ে তিনি বলেন, এটা পুলিশ বাহিনীর কোনো বক্তব্য নয়। এটা ওই কর্মকর্তার নিজস্ব বক্তব্য।সেমিনারে ইসলামিক ফাউন্ডেশন, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা ছাড়াও আলেম-ওলামারা অংশ নেন।