আজ ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

175219afridi

পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের প্রকৃত বয়স ১৭-১৮ নয়; ২৭-২৮!

প্রথমবার্তা প্রতিবেদক: ক্রিকেটারদের বয়স নিয়ে প্রতিবেশি দুই দেশ পাকিস্তান আর আফগানিস্তানের ক্রিকেটাঙ্গনে নিয়মিতই সমালোচনার ঝড় ওঠে। আফগান স্পিনার রশিদ খানকে নিয়ে তো নিয়মিত ট্রল হয়। এছাড়া পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদি, হাসান রাজা, মোহাম্মদ সামি থেকে শুরু করে হালের নাসিম শাহ- কেউ বাদ যাননি বয়স বিতর্ক থেকে। খোদ পাকিস্তানিরাই দাবি করেন, এই ক্রিকেটারদের বয়স ১৬-১৭ বলা হলেও আদতে তা নয়। তাছাড়া শহিদ আফ্রিদি নিজেই স্বীকার করেছেন তার বয়স চুরির কথা।

এবার বয়স বিতর্কে নতুন করে ঘি ঢাললেন পাকিস্তানের ফিক্সিং পাপী মোহাম্মদ আসিফ। সাবেক উইকেটরক্ষক কামরান আকমলের ইউটিউব চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দিতে এসে তিনি এক বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন। আসিফের মতে, পাকিস্তান দলের বর্তমান পেসারদের বয়স ১৭-১৮ বলা হলেও আসলে তাঁদের প্রত্যেকের বয়স ২৭ কিংবা ২৮। তার যুক্তি, এখনকার ‘তরুণ’ পেসাররা টানা লম্বা স্পেলে বল করতে পারেন না। অলা্পতেই বুড়ো মানুষদের মতো হাঁপিয়ে ওঠেন।

‘ক্যাচ অ্যান্ড ব্যাট উইথ কামরান আকমল’ শোতে আসিফ বলেছেন, ‘এখনকার বাচ্চারা জানে না কীভাবে একটা টেস্ট ম্যাচে প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট তুলে নিতে হয়। তারা জানে না কীভাবে নিজের ঝুলিতে ১০ উইকেট ভরতে হয়। তারা জানে না কীভাবে একজন ব্যাটসম্যানকে ফ্রন্টফুটে রেখে খেলাতে হয়। তারা জানে না কীভাবে ব্যাটসম্যানদের খুচরো সিঙ্গেল না দিয়ে উইকেট বরাবর বল করতে হয়। উইকেট বরাবর বল করলেই ব্যাটসম্যান লেগ সাইডে বল ঠেলে দিয়ে রান নেয়। রান আটকাতে পারে না।’

যুক্তি দেখিয়ে আসিফ বলেন, ‘তাদের বয়সও অনেক বেশি। বলা হয়, তাদের বয়স ১৭-১৮, কিন্তু আসলে তাদের একেকজনের বয়স অন্তত ২৭-২৮। তারা টানা ২০-২৫ ওভার বল করে যেতে পারে না। হাঁপিয়ে যায়। তারা জানে না কীভাবে বল করতে গিয়ে শরীরকে বাঁকাতে হয়। তাদের মাংসপেশি শক্ত হয়ে যায়। ৫-৬ ওভারের স্পেল করেই তারা কেউ মাঠেই ফিল্ডিং করার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে পারে না। আমার মনে হয় সর্বশেষ সেই ৫-৬ বছর আগে কোনো পেসারকে দেখেছিলাম টেস্ট ম্যাচে ১০ উইকেট নিতে। আমরা তো বল ছাড়তেই চাইতাম না।