আজ ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বশেমুরবিপ্রবিতে স্থায়ী শিক্ষক ছাড়াই চলছে স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগ
বশেমুরবিপ্রবিতে স্থায়ী শিক্ষক ছাড়াই চলছে স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগ

বশেমুরবিপ্রবিতে স্থায়ী শিক্ষক ছাড়াই চলছে স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগ

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ প্রতিষ্ঠার প্রায় তিন বছর পার হলেও গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগে এখন পর্যন্ত নেই কোনো স্থায়ী শিক্ষক, নেই পর্যাপ্ত ক্লাসরুমও।

সংশিষ্ট বিভাগের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগে প্রথম এবং দ্বিতীয় বর্ষে প্রায় ৭০ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত রয়েছেন। তবে শিক্ষক সংকট, ক্লাসরুম সংকটে এসকল শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন এখন হুমকির সম্মুখীন।

স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইমন ঘোষ বলেন, আমাদের আর্কিটেক্ট হিসেবে আইএবি কর্তৃক স্বীকৃতি পেতে হলে আমাদের বিভাগের কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। এ সকল শর্তের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হলো- পর্যাপ্ত সংখ্যক শিক্ষক থাকতে হবে এবং পর্যাপ্ত সংখ্যক ডিজাইন স্টুডিও, ক্লাসরুম ও কম্পিউটার ল্যাব থাকতে হবে। কিন্তু আমাদের বিভাগে এর কোনো কিছুই নেই। আর আইএবি কর্তৃক স্বীকৃতি না পেলে এককথায় আমাদের শিক্ষাজীবন অর্থহীন।

একই বর্ষের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন ধ্রুব বলেন, প্রতিষ্ঠার পর প্রায় তিন বছর পার হলেও আমাদের বিভাগে কোনো স্থায়ী শিক্ষক নেই। মাত্র দুজন খণ্ডকালীন শিক্ষক দিয়েই চলছে আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম। এমনকি আমাদের জন্য ডিজাইন স্টুডিও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হলেও প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা সম্পন্ন পর্যাপ্ত সংখ্যক ডিজাইন স্টুডিও এবং ক্লাসরুমও নেই। প্রশাসনের কাছে বারবার সমস্যাগুলো জানানো হলেও তারা শুধুমাত্র সমাধানের আশ্বাসেই তাদের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রেখেছে। এমতাবস্থায় আমরা আমাদের শিক্ষাজীবন নিয়ে অত্যন্ত হতাশ এবং শঙ্কিত।

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক ও স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগের সভাপতি (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মৃণাল কান্তি বাওয়ালি বলেন, একটি বিভাগে শিক্ষার্থী ভর্তির পূর্বেই শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া প্রয়োজন। তবে এটি খুবই দুঃখজনক যে এই বিভাগে তিন বছর পার হলেও কোনো স্থায়ী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়নি। সভাপতি হিসেবে বিষয়টি সমাধানের জন্য আমি প্রশাসনের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করেছি এবং আমার পক্ষ থেকে যতটুকু করা সম্ভব করেছি।

শিক্ষক সংকটের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগম বলেন, স্থাপত্যবিদ্যা বিভাগসহ যেসকল বিভাগে শিক্ষক নেই সকল বিভাগেই শিক্ষকের পোস্ট দেওয়া হয়েছে এখন বাকি দায়িত্ব বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের।

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ কিউ এম মাহবুব বলেন, আমরা এই মাসের মধ্যেই শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রদান করব।