আজ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

Screenshot 2020 1012 132955

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের প্রথম ম্যাচে জয় পেল শান্ত একাদশ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে জয় দিয়ে শুরু হলো তারণ্য নির্ভর দল নাজমুল হোসেন শান্ত একাদশের।গতকাল রবিবার তারা মাহমুদউল্লাহ একাদশকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে।

 

টস হেরে প্রথমে ব্যাট হাতে নেমে ৪৭.৩ ওভারে ১৯৬ রানে অল-আউট হয় মাহমুদউল্লাহ একাদশ। জবাবে ৭৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়েছিল নাজমুল একাদশ। এরপর ১০৫ রানের জুটি গড়ে দলের জয়ের তৈরি করে ফেলেন হৃদয়-শুকুর।

 

টস জিতে প্রথমে বোলিং করার সিদ্বান্ত নেন নাজমুল একাদশের অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। ব্যাট হাতে মাহমুদউল্লাহ একাদশের পক্ষে ইনিংস শুরু করেন দুই ওপেনার লিটন দাস ও নাইম শেখ।

 

৩ ওভার ব্যাট করার পরই বৃষ্টিতে বন্ধ হয় খেলা। এসময় কোন উইকেট না হারিয়ে ১৭ রান করে মাহমুদউল্লাহ একাদশ। ৪২ মিনিট খেলা বন্ধ থাকে। পরবর্তীতে খেলা শুরু হলে, বিপদেই পড়ে মাহমুদউল্লাহ একাদশ। পরের ১৩ বলে মাত্র ৪ রানে উপরের সারির তিন ব্যাটসম্যানকে হারায় তারা।

 

লিটন ১১ রান করে নাজমুল একাদশের পেসার তাসকিন আহমেদের ও মোমিনুল হক খালি হাতে আল-আমিন হোসেনের শিকার হন। ৯ রান করে রান আউট হন নাইম। ২১ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর চতুর্থ উইকেটে ৭৩ রানের জুটি গড়েন ইমরুল ও মাহমুদউল্লাহ।

 

ইমরুলকে ব্যক্তিগত ৪০ রানে থামিয়ে জুটি ভাঙ্গেন নাইম হাসান। ইমরুলের বিদায়ে পরের দিকে বড় ইনিংস খেলতে ব্যর্থ হয়েছেন নুরুল হাসান সোহান ও সাব্বির রহমান। এর মাঝে মাহমুদউল্লাহও বিদায় নেন। তিনি ৮২ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ৫১ রান করেন। সাব্বিরের ব্যাট থেকে আসে ২২ রান।

 

স্বীকৃত ব্যাটসম্যানদের বিদায়ের পর দুই টেল-এন্ডার আবু হায়দার রনি ও রাকিবুল হাসানের ছোট্ট দু’টি ইনিংসের সুবাদে ২শর কাছাকাছি পৌছাতে পারে মাহমুদউল্লাহ একাদশ। ১৫ বল বাকী থাকতে ১৯৬ রানে অল-আউট হন মাহমুদউল্লাহ একাদশ।

 

রনি অপরাজিত ১৪ ও রাকিবুল ১৫ রান করেন। নাজমুল একাদশের তাসকিন ৩৭ রানে-আল আমিন ৪০ রানে ও মুগ্ধ ৪৪ রানে ২টি করে উইকেট নেন। এছাড়া নাইম-সৌম্য সরকার ১টি করে উইকেট নেন।

 

জয়ের জন্য ১৯৭ রানের টার্গেটে শুরুটা ভালো হয়নি নাজমুল একাদশের। ৭৯ রানে ৫ উইকেট হারায় তারা। সাইফ হাসান ১৭, সৌম্য সরকার ২১, শান্ত ২৮, মুশফিকুর রহিম ১ ও আফিফ হোসেন ৪ রান করে ফিরেন। এর মধ্যে পেসার এবাদত হোসেনের তিনটি শিকার ছিল।

 

উপরের সারির ব্যাটসম্যানদের হারিয়ে চাপে থাকা নাজমুল একাদশকে খেলায় ফেরানোর চেষ্টা করেন তৌহিদ হৃদয় ও ইরফান শুকুর। মাহমুদউল্লাহ একাদশের বোলারদের দেখেশুনে খেলে রানের চাকা ঘুড়াতে থাকেন হৃদয়-শুকুর।

 

দুজনই হাফ-সেঞ্চুরি তুলে ম্যাচের লাগাম নিয়ে নেন। ষষ্ঠ উইকেটে ১০৫ রানের জুটি গড়েন তারা। ৬৭ বলে ২টি করে চার-ছক্কায় ৫২ রান করে ফিরেন হৃদয়। তবে ৭৮ বলে ৬টি চারে ৫৬ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন শুকুর। ছক্কা মেরে দলকে জয় এনে দেন নাইম হাসান। ৪ বলে ৭ রানে অপরাজিত থাকেন নাইম।

 

মাহমুদউল্লাহ একাদশের এবাদত ৪৬ রানে ৩ উইকেট নেন। মহামারী করোনার কারণে গত মার্চ থেকে দেশের ক্রিকেট বন্ধ ছিল। ক্রিকেটকে মাঠে ফেরাতে এটি ছিল বিসিবির ধারাবাহিক উদ্যোগের একটি বড় অংশ।