আজ ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

Screenshot 2020 1012 120935

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পদ্মা লাইফ ইনস্যুরেন্সের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ , অফিস ঘেরাও

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় পদ্মা লাইফ ইন্সুরেন্সের বিরুদ্ধে দরিদ্র ঋষি সম্প্রদায়ের গ্রাহকদের লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

 

গ্রাহকদের অভিযোগ, বছরের পর বছর বিমার টাকা (প্রিমিয়াম) জমা দিয়ে মেয়াদ শেষে টাকা তুলতে গিয়ে টাকা ফেরত পাচ্ছেন না তাঁরা। এ অবস্থায় নিজেদের টাকা ফেরত পেতে উপজেলার আদালত সড়কে অবস্থিত পদ্মা লাইফ ইন্সুরেন্স কার্যালয় ঘেরাও করেন বিক্ষুব্ধ হরিজন সম্প্রদায়ের লোকজন।

 

এর আগে টাকা ফেরত পাওয়ার দাবিতে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে নবীনগর পৌরসভার মেয়রের কাছে যান তাঁরা। এসময় মেয়র শিব শংকর দাস এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

 

জানা যায়, নবীনগর পৌরসভার ভোলাচং ঋষিপাড়ায় বসবাসকারী দরিদ্র ঋষি সম্প্রদায়ের শতাধিক নারী-পুরুষ কয়েক বছর ধরে স্থানীয় পদ্মা লাইফ ইন্সুরেন্সে মাসিক ২০০ টাকা (প্রিমিয়াম) করে জমা দিতেন। সম্প্রতি মেয়াদ শেষে পুরো টাকা ফেরত নিতে আসলে পদ্মা লাইফের সংশ্লিষ্ট লোকজন টাকা দিতে নানা টালবাহানা শুরু করেন।

 

এ অবস্থায় গতকাল রবিবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে ঋষি সম্প্রদায়ের বিক্ষুব্ধ মানুষ নবীনগর আদালত সড়কে অবস্থিত পদ্মা লাইফের জোনাল অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেন।

 

এর আগে নবীনগর পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট শিব শংকর দাসের কাছে বিক্ষোভকারীরা তাদের অভিযোগের প্রতিকার চাইতে গেলে মেয়র এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে তাৎক্ষণিকভাবে অনুরোধ করেন।

 

বিক্ষোভকারীরা প্রথমবার্তার কাছে অভিযোগ করেন, পদ্মা লাইফের মাঠকর্মী মনোয়ারা বেগমের মাধ্যমে মাসিক ২০০ টাকা করে গত কয়েক বছর ধরে জমা দিয়ে আসছেন গ্রাহকরা। মেয়াদ শেষে এখন তারা কোনো টাকা ফেরত পাচ্ছেন না।

 

পদ্মা লাইফ ইন্সুরেন্স জোনাল অফিসের ইনচার্জ নজরুল ইসলাম বলেন, ‘মনোয়ারা বেগম এখন আর পদ্মা লাইফে চাকরি করেন না। এদের দলিলও নেই। এর পরও আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

 

মেয়র শিব শংকর দাস বলেন, ‘অত্যন্ত দরিদ্র দলিত ঋষি সম্প্রদায়ের এসব অসহায় লোকদের কষ্টের টাকা ফেরত দিতে ন্যূনতম গড়িমসি করলে, ইন্সুরেন্সের লোকজনের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

নবীনগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শেখ আজিজ প্রথমবার্তাকে বলেন, ‘পদ্মা লাইফের সংশ্লিষ্ট লোকজন এক সপ্তাহ সময় নিয়েছেন। এরমধ্যে টাকা ফেরত না দিলে, অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’