আজ ২৭শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

Sumon

ভৌতিক বিদ্যুৎ বিল নিয়ে যা বললেন ব্যারিস্টার সুমন

প্রথমবার্তা,প্রতিবেদক :অস্বাভাবিক ভৌতিক বিদ্যুৎ বিল বন্ধে অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন।

 

রবিবার (১১ অক্টোবর) রাজধানীর হাতিরপুলে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের সামনে দাঁড়িয়ে ফেসবুক লাইভে তিনি এ দাবি করেন।

 

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘সেপ্টেম্বর মাসে আমার বাসার বিদ্যুৎ বিল এসেছে ৩৩০০ টাকা। এর আগের মাসে এসেছিল ১৩০০ টাকা। চার মাস আগে এসেছিল ২৭০ টাকা। এর মানে নিশ্চয় কোনো একটা ঝামেলা হয়েছে।

 

কারণ বাসায় শুধু আমি আর আমার পিএস থাকি। বাসায় কেন ১৩০০ থেকে হঠাৎ করে ৩ হাজার বিল আসবে। এটা শুধু আমার ক্ষেত্রে না। বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় বিলের যে দুর্নীতি শুরু হয়েছে, এটাকে আমি দুর্নীতি বলতে বাধ্য হচ্ছি।

 

কারণ হচ্ছে একই বাসায়, একই মানুষের কীভাবে ১৩০০ থেকে ৩৩০০ বিল হয়? এ ধরনের ৫ মাসের কাগজ জমা হয়েছে। এজন্য বিষয় নিয়ে কথা বলছি।’

 

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘বিদ্যুৎ বিলের উপরে লেখা আছে, ’শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ অর্থাৎ তারা শেখ হাসিনার নাম ব্যবহার করে এখন প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি শুরু করেছে।

 

ব্যক্তির বিরুদ্ধে তো কথা বলা যায়, কিন্তু এতবড় প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কীভাবে কথা বলবেন? মাননীয় মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি, এই যে মানুষের যে দীর্ঘ নিঃশ্বাস নেত্রীর নাম ব্যবহার করে যে ভৌতিক বিল দেওয়া শুরু করেছেন, সকালে উঠে যে অভিভাবক এরকম ভৌতিক বিল দেখে তার জীবন তো এভাবেই শেষ হয়ে যাচ্ছে।

 

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, ধর্ষণ কী শুধু নারীর হয়? বিদ্যুৎ বিলের ধর্ষণ হচ্ছে না? যে বিল হওয়ার কথা ১৩০০ টাকা সেখানে সাড়ে ৩ হাজার,৫ হাজার করে বিল বানাচ্ছেন। আমাদের বাঁচার কোনো পথ রাখছেন না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি, এরা কিন্তু জনগণের ১২টা বাজায়ে ছেড়ে দেবে।’

 

বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, আমি বলবো, ‘এখনও সময় আছে এই ভৌতিক বিল আপনারা চেক করেন। করোনাকালীন সময়ে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছিল।

 

এরা যা মনে চেয়েছে তাই বিল করেছে। এভাবে তো দেশ চলতে পারে না। অবিলম্বে ভৌতিক বিল বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। তা না হলে কখনও সোনার বাংলা গড়ে উঠবে না।’