আজ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মধুমতি নদীতে ‘বঙ্গবন্ধু ১৭তম জাতীয় দূরপাল্লা সাঁতার প্রতিযোগিতা’ অনুষ্ঠিত

প্রথমবার্তা প্রতিবেদক: জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে গোপালগঞ্জের মধুমতি নদীতে ‘বঙ্গবন্ধু ১৭তম জাতীয় দূরপাল্লা সাঁতার প্রতিযোগিতা-২০২০’ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের উদ্যোগে ম্যাক্স গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সহযোগিতায় দিনব্যাপী আজ (২৮ নভেম্বর) এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের নির্বাচিত ১৪ জন সাঁতারু অংশগ্রহণ করে। এদের মধ্যে বিভিন্ন বয়সের ৭ জন পুরুষ সাঁতারু এবং ৭ জন মহিলা সাঁতারু রয়েছেন। চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ৭ জন পুরুষ সাঁতারু জেলার মধুমতি নদীর কংশুর থেকে হরিদাসপুর ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী হতে ফয়সাল আহমেদ ১ ঘন্টা ১ মিনিট ২৪ সেকেন্ড সময় নিয়ে প্রথম স্থান ও জুয়েল আহম্মেদ ১ ঘন্টা ৩ মিনিট ২৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে এবং বাংলাদেশ নৌবাহিনী হতে মোঃ কাজল মিয়া ১ ঘন্টা ৪ মিনিট ৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করে।

অন্যদিকে, চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ৭ জন মহিলা সাঁতারু জেলার মধুমতি নদীর উলপুর ব্রীজ থেকে হরিদাসপুর ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ৮ কিলোমিটার সাঁতার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। এদের মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী হতে নাঈমা আক্তার ৪৬ মিনিট ৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে প্রথম স্থান অধিকার করে, বাংলাদেশ নৌবাহিনী হতে জুলি আক্তার ৪৭ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনী হতে সবুরা খাতুন ৪৮ মিনিট ২ সেকেন্ড সময় নিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করে।

ছবি: আইএসপিআর

প্রধান অতিথি তাঁর ভাষণে বলেন, ‘প্রান্তিক পর্যায়ে আমাদের অনেক প্রতিভা লুকিয়ে আছে। নদীমাতৃক এই বাংলাদেশে মানুষ ছোটবেলা থেকেই এক একজন সাঁতারু। সুপ্ত প্রতিভাগুলোকে খুঁজে বের করতেই আমাদের এ উদ্যোগ। অনেক দেশে যেখানে নদী ও সুইমিং পুলে সাঁতার শিখেই যদি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সেরা হতে পারে আমরা কেন পারবো না। তিনি আশা করেন, এমন কিছু উদ্যোগের মাধ্যমে আমরা নতুন নতুন সাঁতারু খুঁজে পাবো, যারা আগামী দিনে বড় তারকা হয়ে যেতে পারে।’

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রতিভাবান সাঁতারুদের খুঁজে বের করা এবং মেধা বিকাশের লক্ষ্যে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

প্রতিযোগিতা শেষে বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সভাপতি ও নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল এম শাহীন ইকবাল, ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর এবং বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এম বি সাইফসহ সকলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর রূহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করেন।

পরে জেলার শেখ মনি অডিটোরিয়ামে আয়োজিত সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সভাপতি ও নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল এম শাহীন ইকবাল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা নৌ অঞ্চলের আঞ্চলিক কমান্ডার, ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান, গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর এবং গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক, এম বি সাইফ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে জাতীয় সুইমিং ফেডারেশনের কর্মকর্তা, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ, জাতীয় পর্যায়ের বিপুল সংখ্যক সাঁতারু ও সাধারণ দর্শক উপস্থিত ছিলেন।