আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

hathazari madrasa 1

মাওলানা শফী হত্যার তদন্ত শুরু

প্রথমবার্তা প্রতিবেদকঃ হেফাজতে ইসলামের সাবেক আমির মাওলানা শাহ আহমদ শফী হত্যা মামলার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)৷ হেফাজত নেতারা বলেছেন, এটি একটি মিথ্যা মামলা৷ তবে তদন্তকারীদের আমরা পূর্ণ সহযোগিতা করছি৷ খবর ডয়চে ভেলের।

মঙ্গলবার ২৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে চট্টগ্রাম পিবিআই এর একটি দল৷ ওই দলের প্রধান চট্টগ্রাম বিভাগীয় পিবিআই এর পুলিশ সুপার ইকবাল আহমেদ জানান, তারা মঙ্গলবার ঘটনাস্থল হাটহাজারী মাদ্রাসা পরিদর্শন করেছেন৷ হেফাজতের আমির মাওলানা জুনাইদ বাবুনগরীসহ ২৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন৷ আরও জিজ্ঞাসাবাদ হবে৷ ২৫ জনের মধ্যে তিন-চারজন বিবাদী রয়েছেন৷ মাওলানা বাবুনগরীসহ বাকিদের সাক্ষী হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে৷

মামলার অন্যতম বিবাদী এবং বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙে ফেলার হুমকিদাতা হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে এখনও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি৷

ইকবাল আহমেদ জানান, মামুনুল হকসহ ৩৬ জন বিবাদীকেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে৷

তবে তিনি জানান, মাওলানা শফীর লাশ তুলে ময়না তদন্তের প্রয়োজনীয়তা তারা দেখছেন না৷ আর মামলার আরজিতেও লাশ না তোলার আবেদন করা হয়েছে। তবে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে৷

তদন্ত কর্মকর্তা জানান, আদালত এই মামলার তদন্তে এক মাস সময় দিয়েছে৷ এই সময়ের মধ্যেই তদন্ত শেষ করার আশা করছেন তারা৷ তবে প্রয়োজন হলে সময় বাড়িয়ে নেবেন৷

হেফাজতের প্রচার সম্পাদক মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়েজি জানান, তদন্তকারীরা মাওলানা বাবুনগরী ছাড়াও মাদ্রাসার শিক্ষকদের সাথে কথা বলেছেন, তারা যা জানতে চেয়েছেন তা জানানো হয়েছে৷ এই তদন্তে তাদের সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে৷

অবশ্য তিনি দাবি করেন, মৃত্যুর আগের দুই বছরে আল্লামা শফীকে ১৬ বার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে৷ মারা গেছেন এইরকম খবর বেশ কয়েকবার চাউর হয়েছে৷ ১০৪ বছর বয়সের একটা লোক তিনি অসুস্থ হয়েছেন, হাসপাতালে মারা গেছেন, ওনার ছেলেরা লাশ গ্রহণ করেছেন৷ এটা নিয়ে এই ধরনের কথা একটা ফলস কাজ৷

মাওলানা মামুনুল হক জানান, তাকে এখনও কোনও নোটিশ বা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়নি৷ জিজ্ঞাসাবাদে যা “সত্য” তাই বলবেন তিনি৷

তিনি বলেন, আল্লামা শফীর স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে৷ একটি মহল ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এই মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে৷ গোষ্ঠীগত স্বার্থ এবং হেফাজতের বর্তমান নেতৃত্বকে চাপে রাখতেই এই মামলা৷

তিনি অভিযোগ করেন, এখন তাকে দেশের কোথাও ওয়াজ মাহফিল করতে দেয়া হচ্ছে না৷ স্থানীয় প্রশাসন অনুমতি দিচ্ছে না৷ বলছে, উপরের নিষেধ আছে। তবে তার ব্যক্তিগত চলাফেরায় কোনও বাধা নেই বলে জানান তিনি৷

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ইস্যুতে হেফাজত মাঠে নামার পর তাদের বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরের ঘটনায় দায়ের করা মামলাগুলোর তদন্ত চাঙ্গা করা হলেও এখন আবার তাতে ভাটা পড়েছে।

মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়েজি বলেন, ওইসব মামলার ব্যাপারে পুলিশ তাদের নেতা-কর্মীদের এখন কোনও ঝামেলা করছে না৷ কোনও তদন্তও চোখে পড়ছে না৷

তিনি জানান, স্বারাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে আমাদের নিয়মিত যোগাযোগ ও কথা হচ্ছে৷ আশা করি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও আমাদের বৈঠক হবে৷

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, মূর্তি ইস্যুতে আমরা আর কোনও কর্মসূচি দেব না৷ আমাদের কাজ ছিলো সরকাররকে জানানো৷ আমরা মনে করি ভাস্কর্য আর মূর্তি একই৷ তবে আমরা মূর্তি ভাঙব না৷ এটা সরকারের কাজ। তারা করলে করতে পারেন।

হেফাজতের সাবেক আমির মাওলানা শাহ আহমদ শফী মারা যান গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায়৷ তার আগে তাকে মাদ্রাসার ছাত্রদের বিক্ষোভের মুখে মাদ্রাসা থেকে পদত্যাগ করতে হয়৷ তার ছেলে আনাস মাদানীকে মাদ্রাসা থেকে বের করে দেয়া হয়৷ আর তার শ্যালক মো. মইন উদ্দিন চট্টগ্রামের আদালতে হত্যা মামলা করেন ১৭ ডিসেম্বর৷