আজ ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

1703251 highcourt 1

মিতু হত্যা মামলার তদন্ত সম্পন্ন করতে ৩ মাস সময় মঞ্জুর

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যা মামলায় তদন্ত সম্পন্ন করতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে আরো তিনমাস সময় দিয়েছেন হাইকোর্ট। তদন্ত কর্মকর্তাকে এ সময় দিয়ে আগামী ৬ মে পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন আদালত। এ সময় পর্যন্ত আসামির জামিন আবেদনের ওপর শুনানি মূলতবি করা হয়েছে।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন। মামলার কারাবন্দি আসামি মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিমের জামিন আবেদনের ওপর শুনানিকালে এ আদেশ দেন আদালত আদালতে আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন শংকর প্রসাদ দে। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

এর আগে গতবছর ২ ডিসেম্বর এক আদেশে হাইকোর্ট ৩১ জানুয়ারির মধ্যে তদন্ত কর্মকর্তাকে মামলার অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে তদন্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। এ নির্দেশে গত ৩০ জানুয়ারি তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। এতে বলা হয়, তদন্ত শেষ পর্যায়ে। মামলার পলাতক দুই আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এজন্য তদন্ত সম্পন্ন করতে আরো সময় প্রয়োজন। প্রতিবেদনটি আদালতে উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে চট্টগ্রামে গুলি করে মিতুকে হত্যা করা হয়। খুনিরা মোটর সাইকেলে করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় নগরীর পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাত পরিচয় আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন বাবুল আক্তার। এ ঘটনায় ওই বছরের ২৬ জুন মো. আনোয়ার ও মো. মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে আদালতে এ দুইজনের দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে হত্যাকাণ্ডের মূল ‘পরিকল্পনাকারী’ হিসেবে মুছার নাম উঠে আসে। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত অস্ত্রটি নগরীর বাকলিয়া এলাকার এহতেশামুল হক ভোলা সরবরাহ করে বলে জবানবন্দীতে বলা হয়। মুছা ও ভোলা এসপি বাবুল আক্তারের সোর্স হিসেবে পরিচিত। এরপর পুলিশ ভোলা ও তার সহযোগি মনিরকে একটি পিস্তলসহ গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে মুছার ভাই সাইদুল ইসলাম সাক্কু এবং মো. শাহজাহানকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এছাড়া এ ঘটনায় নুরুল ইসলাম রাশেদ ও নুরুন্নবী নামের দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হলেও ওইবছর ৫ জুলাই তারা পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

আর মূল পরিকল্পনাকারী মুছাকে গ্রেপ্তার করা নিয়ে ধুম্রজাল রয়েই গেছে। পুলিশ বলছে মুছা পলাতক। তার সন্ধানদাতাকে ৫ লাখ টাকা পুরস্কার দেওয়ার ঘোষনা দেয় পুলিশ। তবে মুছার স্ত্রী পান্না আক্তার ওইবছর ৪ জুলাই সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেন, ওই বছর

২২ জুন বন্দর থানার তৎকালীন ওসি মহিউদ্দিন সেলিমের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল মুছাকে গ্রেপ্তার করে।

স্ত্রী মিতু হত্যার ঘটনা জেরে পুলিশের চাকরি ছাড়তে হয়েছে বাবুল আক্তারকে। ওই হত্যাকাণ্ডে বাবুল আক্তার জড়িত বলে সন্দেহ করা হয়। পুলিশ তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদও করেছে। এনিয়ে গণমাধ্যমে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। আদালতের নির্দেশে গতবছর জানুয়ারিতে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই)। এখন মামলাটিতে তদন্ত করছে পিবিআই।