আজ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

Screenshot 20211121 035204

মেদ কমানোর কিছু সহজ উপায়

শিশু, প্রাপ্তবয়স্ক কিংবা বৃদ্ধ—মেদবহুল জীবন সবার বড় ধরনের শারীরিক সমস্যার কারণ হতে পারে। এ জন্য মেদ নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করে মার্জিত ওজন বজায় রাখা জরুরি। কিছু সহজ নিয়ম-কানুন মানলে দেহের মেদ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

 

►       গমের আটার তৈরি রুটির বদলে ছোলা ও যব ভালো করে পিষে সেই আটা দিয়ে রুটি বানিয়ে খান। এতে পেটসহ পুরো দেহের মেদের পরিমাণ কমতে থাকবে।

►       রাতের বেলায় ভাত বা কার্বোহাইড্রেটজাতীয় খাবার বেশি না খেয়ে লাল আটার রুটি, ওটস, সবজি ইত্যাদি খান।

►       নিয়মিত ডায়েটে উচ্চ প্রোটিনযুক্ত খাবার যেমন—মাংস, সামুদ্রিক মাছ, ডিম, দুগ্ধজাত পণ্য ইত্যাদি রাখুন।

►       খাবারের পরিপূর্ণতার অনুভূতি বাড়াতে, ক্যালরি গ্রহণ কমাতে এবং শরীরের চর্বি কমাতে সাহায্য করে ভিনেগার। তাই খাদ্যতালিকায় ভিনেগার অন্তর্ভুক্ত করুন।

►       খাদ্যতালিকা থেকে অতিরিক্ত তেল ও চর্বিজাতীয় খাবারের পরিমাণ কমান।

►       চিনি বা মিষ্টি পানীয় এবং অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় বর্জন করুন। এসবের সঙ্গে পেটের চর্বি বাড়ার উচ্চ ঝুঁকি সম্পৃক্ত। এসবের পরিবর্তে শুধু পানি পান করুন। অন্যদিকে গ্রিন টি হতে পারে দুর্দান্ত বিকল্প। কেননা এতে ক্যাফেইন ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে, যা চর্বি পোড়াতে এবং বিপাকক্রিয়া বাড়াতে সাহায্য করে।

►       দিনে যতটুকু খাবার খাবেন, তার পরিমাণ কিছুটা কমানোর চেষ্টা করুন। কারণ খাবার খাওয়ার পর পেট সামান্য খালি থাকলে মেদ অনেকটাই কমে যায়।

►       খাবার খেয়ে সঙ্গে সঙ্গে পানি পান করবেন না। এতে পেট ও কোমরের স্থূলত্ব অনেকটা বেড়ে যায়। খাবার গ্রহণের কমপক্ষে আধাঘণ্টা পর পানি পান করুন।

►       নিয়মিত সঠিক ঘুম দরকার। গবেষণা বলছে, কম ঘুমে ক্ষুুধার হরমোনের পরিবর্তন, ক্ষুুধা বৃদ্ধি এবং স্থূলতার উচ্চ ঝুঁকি থাকে। এ জন্য প্রতি রাতে কমপক্ষে সাত-আট ঘণ্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন। এতে দেহের ওজনের সমতা বজায় থাকে।

►       অলস জীবন যাপন করবেন না। যতটুকু পারেন কর্মঠ বা সচল থাকুন। নিয়মিত ব্যায়াম করুন।

►       খাবার খেয়েই বিছানায় শুয়ে পড়বেন না।

হেলথ লাইন অবলম্বনে