আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

image 102267 16044155274
ছবি : পিআইডি

যারা স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি তারাই ৩ নভেম্বর হত‌্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি, স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেননি, স্বাধীন বাংলাদেশ চান না, তাদের সহযোগীরা এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিলেন এবং তারা হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন।

মঙ্গলবার জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৫ আগস্ট এবং ৩ নভেম্বরের জেল হত্যাকাণ্ড প্রমাণ করে স্বাধীনতা এবং দেশের জনগণের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হয়েছিল। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের অভ্যন্তরে জাতীয় চার নেতা ও দেশের মুক্তিযুদ্ধের বীর সৈনিক সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী এবং এএইচএম কামারুজ্জামানকে হত্যা করা হয়। এ চার নেতা মুজিবনগর সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এ সরকার ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটি মহল প্রচার করার চেষ্টা করেছিল ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ড একটি পরিবারের বিরুদ্ধে ঘটনা ছিল, কিন্তু তাদের মূল লক্ষ্যটি ৩ নভেম্বর হত্যার মধ্য দিয়ে প্রমাণ হয়েছিল।

তিনি বলেন, এটি স্বাধীনতা এবং দেশের জনগণের বিরুদ্ধে এক রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র ছিল। এটি প্রমাণ করে তাদের উদ্দেশ্য ছিল মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ পরিবর্তন করা।

 

এ ষড়যন্ত্রে তৎকালীন জেনারেল জিয়াউর রহমান খুনি মোস্তাক আহমেদের ডান হাত ছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, খুনি মোস্তাক যখন জেনারেল জিয়াউর রহমানকে তার সেনাবাহিনী প্রধান করেন তখন এ ষড়যন্ত্র স্পষ্ট হয়ে যায়। সুতরাং, এটি স্বাভাবিকভাবেই প্রমাণ হয় যে জিয়াউর রহমান মোস্তাকের ডান হাত ছিলেন।

এ হত্যার পরে দেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থেকে বিচ্যুত হয়েছিল বলে প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বক্তব্য দেন।