আজ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

4 7

যে কারণে ম্যারাডোনার কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন মালদিনি

প্রথমবার্তা প্রতিবেদক:কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়েগো ম্যারাডোনার কাছে হাতজোর করে ক্ষমা চেয়েছিলেন ইতালির আরেক কিংবদন্তি পাওলো সিজার মালদিনি।

ইউরোপা লিগে বৃহস্পতিবার লিল বনাম মিলান ম্যাচের আগে একটি ফরাসি টেলিভিশন নেটওয়ার্ককে এমনটাই জানালেন সাবেক এই ডিফেন্ডার। কেন ক্ষমা চেয়েছিলেন সে কথাও জানান মালদিনি ।

তিনি জানান, ১৯৮৪ থেকে ১৯৯১ পর্যন্ত ইতালির ক্লাব নাপোলিতে খেলেন ম্যারাডোনা। সে সময় এসি মিলানে রক্ষণভাগের দায়িত্বে থাকতেন মালদিনি। লিগ খেলায় ম্যারাডোনাকে প্রতিপক্ষ হিসেবে অনেকবারই পেয়েছেন তিনি।

সে সময় তার লক্ষ্যই ছিল যে কোনো মূল্যে ম্যারাডোনাকে থামানো। নয় তো পরাজয় নিশ্চিত। কেননা অসাধারণ ড্রিবলিং করে প্রায়ই মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়তেন ম্যারাডোনা।

তাই ম্যাচে সব মনোযোগ ম্যারাডোনার দিকেই থাকত মালদিনির। এমন পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নেমে প্রায়ই ম্যারাডোনাকে ফাউল করেছের মালদিনি। যা মাঠে বুঝতে পারেননি তিনি।

একবার ম্যারাডোনার পাশে বসেই এক ভিডিওতে ম্যাচ রিপ্লে দেখছিলেন মালদিনি। এ সময় নিজের করা ফাউল দেখে লজ্জা পান মালদিনি। পাশে বসে থাকা আর্জেন্টাইন কিংবদিন্তর কাছে সঙ্গে সঙ্গেই ক্ষমা চেয়ে নেন।

ম্যারাডোনাকে হারিয়ে শোকাহত মালদিনি বৃহস্পতিবার বলেন, ম্যারাডোনাকে আটকানো কত কঠিন ছিল তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাকে ধরা কঠিন ছিল। সেরি-এ ‘হল অব ফেম’ অ্যাওয়ার্ডে আমি তার পাশে ছিলাম। তারা আমাদের একসঙ্গের ভিডিও দেখিয়েছিল।

আমি নিজেকে একজন ভদ্র ডিফেন্ডার হিসেবে ভাবতাম। কিন্তু সেই ভিডিও দেখে আমাকে স্বীকার করতে হবে, আমি তাকে কিছু ভয়ঙ্কর ফাউল করেছিলাম। সেটি খুবই দ্রুতগতির ছিল। তার পুরো ক্যারিয়ারে সব সময় তাকে লাথি মারা হয়েছে। ওই ভিডিও দেখার পর আমি লজ্জা পেয়ে তার কাছে ক্ষমা চেয়েছিলাম।

প্রসঙ্গত, ১৯৮৬-৮৭ মৌসুমে ম্যারাডোনার জাদুতে ভর করে ক্লাবের ইতিহাসে প্রথম ইতালিয়ান সেরি-এ’র শিরোপা জেতে নাপোলি। এরপর ১৯৮৯-৯০ মৌসুমে নাপোলিকে আরও একবার লিগ শিরোপা জেতান ম্যারাডোনা । ফুটবলের ইতিহাসে ক্লাবটির শিরোপা জয় এ দুটোই।

তাই ম্যারাডোনাকেই ফুটবল ইশ্বর বলে মানেন নেপলসের বাসিন্দারা।

১৯৯১ সালে ম্যারাডোনা নাপোলি ছেড়ে চলে গেলে তার সম্মানে ক্লাবটির হয়ে ১০ নম্বর জার্সিতে মাঠে নামেনি আর কেউ।