আজ ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

হেফাজতে

হেফাজতের আরও যেসব নেতা নজরদারিতে

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:  হেফাজতে ইসলামের আলোচিত যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে রোববার দুপুরে গ্রেফতার করে পুলিশ। সোমবার (১৯ এপ্রিল) তাকে আদালতে তোলা হলে মোহাম্মদপুরে ভাঙচুরের মামলায় সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।এর আগে, ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে রয়্যাল রিসোর্টে দ্বিতীয় স্ত্রীসহ ঘেরাও হওয়ার পর মামুনুল হকের একাধিক বিয়ের খবর বের হয়।

 

একের পর এক অডিও রেকর্ড ফাঁস হলে আলোচনায় আসেন হেফাজতের গুরুত্বপূর্ণ এই নেতা। তখন থেকেই যে কোন সময় তিনি গ্রেফতার হবে বলে গুঞ্জন উঠতে থাকে। তবে, তাকে বাইরে রেখে গত এক সপ্তাহে হেফাজতের নয় কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।এদের মধ্যে অন্যতম কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলামাবাদী, সহকারী সাংগঠনিক সম্পাদক শাখাওয়াত হোসাইন রাজি, যুগ্ম মহাসচিব জুনায়েদ আল হাবীব ও সহকারী মহাসচিব জালাল উদ্দিন আহাম্মদ অন্যতম।

 

তবে, হেফাজতের মধ্যে এখনো সক্রিয় রয়েছেন- এমন প্রায় ৩০ জনের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে। যারা সবাই এখন গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছেন। এর মধ্যে পাঁচজন ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার হয়েছেন। বাকি ২৫ জন নজরদারিতে আছেন। এসব নেতার প্রায় সবাই ২০১৩ সালের শাপলা চত্বরের ঘটনার কোনো না কোনো মামলার আসামি।

 

পর্যায়ক্রমে তাদের গ্রেফতার হবে।এছাড়া, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরকে কেন্দ্র করে সারাদেশে সহিংসতার ঘটনায় ৭৭টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায়ও নজরদারির মধ্যে থাকা অনেককে আসামি করা হয়েছে।এর মধ্যে হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর সভাপতি মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীবকে রোববার আদালতে হাজির করে পল্টন থানায় ২০১৩ সালের একটি মামলায় রিমান্ড আবেদন করলে আদালত সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

 

এদিকে রোববারই সাত দিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদীর। তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক কর্মকর্তার কথায় এ গ্রেফতার অভিযান অব্যহত থাকার ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। যুগ্ম কমিশনার মো. মাহবুব আলম গণমাধ্যমকে বলেছেন, হেফাজতের আরও অনেক নেতা টার্গেটে আছেন। পর্যায়ক্রমে তাদের গ্রেফতার করা হবে। সূত্র : সময় সংবাদ।