1. [email protected] : bijoy : bijoy Book
  2. [email protected] : News Room : News Room
  3. [email protected] : prothombarta :
পর্যটন শিল্পে পরিবেশগত-আর্থসামাজিক প্রভাব ফেলছে রোহিঙ্গারা
রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:৩৮ রাত

পর্যটন শিল্পে পরিবেশগত-আর্থসামাজিক প্রভাব ফেলছে রোহিঙ্গারা

  • পোষ্ট হয়েছে : শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২২
প্রথমবার্তা, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে “ডিটারমাইনিং দ্যা ইমপেক্ট ওফ ফোর্স রোহিঙ্গা মাইগ্রেশন অন ট্যুরিজম অ্যাট কক্সবাজার, বাংলাদেশ ” বিষয়ক শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ সেমিনারে গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন করেন ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মহিউদ্দিন ।
বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের ১০৩ নম্বর রুমে এই উন্মুক্ত  পিএইচডি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
পিএইচডি গবেষক ও উপস্থাপক ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মহিউদ্দিন বলেন, কক্সবাজার বাংলাদেশের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র। উক্ত অঞ্চলের অনেক মানুষের অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে পর্যটন শিল্পের উপর নির্ভরশীল। ২০১৭ সালে মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশ থেকে জোরপূর্ব অভিগমন হওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীরা আসার পর কারণে কক্সবাজার জেলার পর্যটন শিল্পের উপর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। বিশেষ করে পরিবেশগত ও আর্থ-সামাজিক প্রভাব অনেক বেশি। বিশেষ করে বন উজাড়, পানি দূষণ, বর্জ্য সমস্যা। অর্থনৈতিক প্রভাব বিশেষ করে,  দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, পর্যটন শিল্পে স্থানীয়দের কর্মসংস্থান হারানো, বাংলাদেশ ব্যবসা বানিজ্যের  এছাড়া সামাজিক প্রভাব বিশেষ করে নিরাপত্তা সংকট, মাদক ব্যবসা, অপহরণসহ অন্যান্য প্রভাব যা পর্যটন শিল্পের উপর হুমকি।
তিনি আরো বলেন, আমার গবেষণার বিষয় হলো রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের ফলে কক্সবাজার এলাকায় পর্যটন শিল্পের উপর কি ধরনের প্রভাব পড়েছে তার একটি সমীক্ষা করা এবং দেশের পলিসি মেকারদের একটি সাজেশন্স দেয়া যাতে তারা রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে সঠিক কূটনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে। আমাদের গবেষণায় প্রাথমিক ও গৌণ উভয় ধরণের তথ্যই ব্যবহার করা হবে।
গবেষণার তত্বাবধায়ক অধ্যাপক ড. মল্লিক আকরাম হোসেন বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে শুধু স্থানীয় পর্যায়ে পর্যটনের পরিবেশ বিপর্যয়ের সাথে সাথে অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিপর্যয় হচ্ছে। এটা সামগ্রিক রাষ্ট্রের পরিবেশ জন্য ও ঝুঁকি।
অধ্যাপক ড. আশরাফ দেওয়ান বলেন, পরিবেশ বিপর্যের জন্য রোহিঙ্গাসহ স্থানীয় জনগণ ও দায়ী।  তবে আত্ম-সামাজিক নিরাপত্তার জন্য রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়ার বিকল্প নাই।
লাইফ এন্ড আর্থ সায়েন্স এর ডিন অধ্যাপক ড. খন্দকার মনিরুজ্জামান খন্দকার বলেন,  এধরণের গবেষণায় সরকার পর্যায়ে অনেক কাজে আসবে।
বিভাগের চেয়ারম্যান  অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন পিএইচডি’র তত্বাবধায়ক অধ্যাপক ড. মল্লিক আকরাম হোসেন (অন লাইনে)। লাইফ এন্ড আর্থ সায়েন্স এর ডিন অধ্যাপক ড. খন্দকার মনিরুজ্জামান। উপস্থিত ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার কার্টিন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আশরাফ দেওয়ান।  রসায়ন বিজ্ঞান বিভাগের সিনিয়র অধ্যাপক ড. সামাদ রসায়ন বিভাগ। ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক  ড. নিগার সুলতানা, সহকারী অধ্যাপক ড. এনএম রিফাত নাসের, ড. নাজমুন নাহার, মো. আশ্রাফ উদ্দীন, রিফফাত মাহমুদ।
সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন মনোবিজ্ঞান বিভাগ অধ্যাপক ড. নূর মোহাম্মদ, ইসলামের ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. শামসুল কবির ও কামাল হোসেন, রসায়ন বিভাগ অধ্যাপক ড. লোকমান হোসেন।
এছাড়া জবির সহকারী প্রক্টর নিউটন হাওলাদার, কাজী ফারুক হোসনে, শাহনাজ পারভীন ও কাজী ফারুক হোসেনসহ অন্যান্য গবেষকবৃন্দ সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন৷
Facebook Comments Box

শেয়ার দিয়ে সাথেই থাকুন

print sharing button
এ বিভাগের অন্যান্য খবর

দেখুন ৫০ কোম্পানির ইপিএস

  • ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩