আজ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ভারতীয়দের নেপাল ভ্রমণে ‘আইডি কার্ড’ প্রদর্শন করতে হবে

​প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃভারতের বন্ধু দেশ নেপাল। এতদিন পর্যন্ত সবাই এমনটাই জানত। তবে সাম্প্রতিক সীমান্ত বিরোধ ও নেপালের নতুন মানচিত্র প্রণয়নে এখন দুই দেশের সম্পর্কের সংজ্ঞা বদলেছে। আর তাই নেপাল ও ভারতের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আর আগের মতো নেই। নেপাল ভ্রমণে এতদিন পর্যন্ত ভারতীয় নাগরিকদের কোনো বিধিনিষেধ ছিল না। পাসপোর্ট-ভিসা ছাড়াই ভারতীয়রা নেপালে ভ্রমণ করতে পারত। তবে অলি সরকারের নতুন আইনের ফলে এখন থেকে ভারতীয়দের নেপাল ভ্রমণে আইডি কার্ড প্রদর্শন করতে হবে।

নেপালের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাম বাহাদুর থাপা জানিয়েছেন, ‘করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তাদের প্রশাসন এখন সতর্ক। আর তাই ভারত থেকে কারা তাদের দেশে আসছেন তার রেকর্ড রাখতে চান তারা। করোনা মহামারির এই সময়ে অন্য দেশ থেকে কাউকে ঢুকতে দিলে ঝুঁকি থেকে যায়। তবুও ভারতীয়দের নেপাল ভ্রমণে বিধিনিষেধ রাখছে না তাঁরা। তবে নেপালে প্রবেশ করার আগে ভারতীয়দের বাধ্যতামূলকভাবে আইডি কার্ড দেখাতে হবে।’

এর আগে নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি তাঁর দেশে করোনা সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য ভারতের ঘাড়ে দোষ চাপিয়েছিলেন। আর এবার ভারতীয়দের জন্য নেপাল প্রবেশে চাপানো হল শর্ত। বোঝাই যাচ্ছে, দুই বন্ধু রষ্ট্রের সম্পর্কের তিক্ততা বাড়ছে। দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বপরায়ণ প্রতিবেশী নেপালের এমন আচারণে ভারতজুড়ে একাধারে বিস্ময় ও উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে।

৭৮ কিমি লম্বা কৈলাশ মানসরোবর রোড নিয়ে দুই দেশের মধ্যে ঝামেলার সূত্রপাত হয়েছিল। সেই রাস্তায় একটি ব্রিজ নির্মাণ করেছে ভারত। ওই রাস্তার শেষে নির্মিত ব্রিজ ধারচুলা, লিপুলেখের যোগাযোগ ব্যবস্থা রক্ষা করবে। মে মাসে সেই ব্রিজ উদ্বোধনে গিয়েছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। তারপর থেকেই নেপালের সঙ্গে সম্পর্কে তিক্ততা সৃষ্টি হয়েছে।

নেপালের দাবি, লিপুলেখসহ ওই এলাকার তিনটি ভূখণ্ড আদতে তাদের। যদিও তার কোনও প্রমাণ তাঁদের কাছে নেই। এর পরই ওই ভূখণ্ড অন্তর্ভুক্ত করে নতুন মানচিত্র প্রকাশ করেছিল নেপাল।

সূত্র : টাইমসনাউ নিউজ।