আজ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ধোনিকে অধিনায়ক করতে ক্ষমতা দেখিয়েছিলাম’

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:  ভারতের সর্বকালের সফলতম অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি অবসর নিয়েছেন। এর পর থেকে চলছে বিভিন্ন জনের স্মৃতিচারণা। ধোনি বরাবরই স্বল্পভাষী, মনের অভিব্যক্তি কোনো দিনই মুখে প্রকাশ করেননি। তাই ধোনির এই অবসরের সিদ্ধান্তের পর থেকেই উঠে আসছে একের পর এক অজানা তথ্য। অধিনায়ক হিসেবে দুটি বিশ্বকাপ আর একটি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিতলেও তাঁর শুরুটা এত সহজ ছিল না। ধোনিকে অধিনায়ক করার গল্প শুনিয়েছেন বিসিসিআইয়ের সাবেক বিতর্কিত প্রেসিডেন্ট এন শ্রীনিবাসন।

২০১১ সালে ধোনিকে ক্যাপ্টেন করার জন্য প্রেসিডেন্ট হিসেবে যা যা ক্ষমতা দেখানোর প্রয়োজন ছিল, শ্রীনিবাসন নাকি তার সব কিছুই দেখিয়েছেন। শ্রীনিবাসনের কথায়, ‘২০১১ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট ম্যাচে আমরা ৪-০ ব্যবধানে হেরেছিলাম। এর পরই নির্বাচকরা কোনো বদলি ক্যাপ্টেনের কথা না ভেবেই ধোনিকে ওয়ানডে দল থেকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু আমি একটাই নাম বলে রেখেছিলাম- সেটা হলো এম এস ধোনি। বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিজের সব ক্ষমতার ব্যবহার করেছিলাম সেদিন।’

তবে সেদিনের সেই সিদ্ধান্ত যে ভুল ছিল না তা ভেবে আজও খুশি হন এন শ্রীনিবাসন। ধোনির কথা বলতে গিয়ে কিছুটা আবেগপ্রবণ হয়ে তিনি জানান, ‘মহেন্দ্র সিং ধোনি একেবারে অন্যরকম একজন মানুষ, অন্যরকমের ক্রিকেটার এবং খুব খুব ভালো মানুষ। আমার সুযোগ হয়েছে ধোনিকে কাছ থেকে চেনার। আমার জীবনে অনেক বড় বড় ক্রিকেটার দেখেছি, কিন্তু ধোনি অনন্য। ও শুধুমাত্র দেশের জন্য খেলে গেছে, দলের জন্য খেলে গেছে।’

এছাড়াও ধোনিই নাকি আইপিএলকে জনপ্রিয় করে তুলেছিলেন বলে জানান শ্রীনিবাসন, ‘কোভিডের আগে যখন স্টেডিয়ামে প্র্যাকটিস করতে এলো, তখন ধোনিকে দেখতেই ২০ হাজার লোক এসেছে। সে মাঠে ঢুকতেই ‘ধোনি’ ‘ধোনি’ বলে চিৎকার করে উঠেছে জনতা। এখন পর্যন্ত তার এত জনপ্রিয়তা। টি-টোয়েন্টি লিগ, আইপিএলকে জনপ্রিয় করে তোলার আরেক নাম কিন্তু মহেন্দ্র সিং ধোনি।’