আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

কুয়েতে মানবপাচারকারী চক্রের হোতা গ্রেপ্তার

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: কুয়েতে মানবপাচারকারী চক্রের হোতা আমির হোসেন ওরফে সিরাজ উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।সিআইডি জানায়, বিদেশি গোয়েন্দা তথ্যর ভিত্তিতে জানা যায়, কুখ্যাত চার মানবপাচারকারী দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ থেকে মানবপাচার করে আসছে। এ চক্র ৯শ’র বেশি মানুষকে কুয়েতে পাচার করেছে।

জন প্রতি তাদের কাছ থেকে ৬ লাখ ও তারও বেশি টাকা নিয়ে তাদের কুয়েতে পাঠায়। উচ্চ বেতনের প্রলোভন দেখিয়ে কুয়েতে পাচারের পর ভিকটিমদের উপর নেমে আসে দুর্বিষহ যন্ত্রণা।

প্রতারিত বাংলাদেশিরা কাজের সন্ধানতো পায়ইনি বরং খাবার ও বাসস্থান সংকটের কারণে কুয়েতের রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়তে হয়। কুয়েতে ভিকটিমদের বন্দি করে তাদের অসহায়ত্বের সুযোগ নেয়। তারা জাল জালিয়াতির মাধ্যমে কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ভিসা নেয় বলে জানা যায়।

এদের মধ্যে কয়েকজন ভিকটিম কুয়েতের সরকারি এজেন্সি ও জনশক্তি কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করলে তারা বিষয়টি তদন্ত শুরু করে। কুয়েতের এজেন্সি তদন্ত করে এর সত্যতা খুজে পায়। অভিযোগের ভিত্তিতে কুয়েতের আদালতে কয়েকটি মামলা দায়ের হয়। পরবর্তী সময়ে এ চক্রের চার জন্য (১ জন কুয়েতি ৩ জন বাংলাদেশি) বিরুদ্ধে কুয়েতের আদালত অভিযোগ আমলে নেয়।

উল্লেখিত আদালত তাদের তিন বাংলাদেশির বিরুদ্ধে ৩ বছর কারাদণ্ড ও অর্থ দণ্ডসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করে। এ চক্রের অন্যতম হোতা কুয়েতি নাগরিককে ৬ বছরের সাজা দেয়া হয়। কুয়েতি নাগরিক গ্রেপ্তারের পর সাজা পেলেও বাংলাদেশি তিন জন পালিয়ে দেশে চলে আসে।

সম্প্রতি সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম এ তথ্যর ভিত্তিতে সিআডি তদন্ত শুরু করে। গত ১৭ আগস্ট সিরিয়াস ক্রাইম, অর্গানাইজড ক্রাইম সিআইডির একাধিক টিম বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে নরসিংদীর মাধবদী থেকে এ পাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা আমির হোসেনকে গ্রেপ্তার করে। এ বিষয়ে তথ্য উদঘাটনের জন্য আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। পাশাপাশি এ চক্রের অন্য সদস্যদের গ্রেপ্তারের জন্য সিআইডি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।