আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

করোনার শক্তি নিয়ে ভয়ঙ্কর তথ্য দিলেন বিশেষজ্ঞরা

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ   বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। কোনভাবেই যেন থামানো যাচ্ছে না এই মিছিল। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এই আক্রান্ত ও মৃতের মিছিলে যোগ দিচ্ছে।

 

মূলত করোনা ভাইরাসের গায়ের স্পাইক বা কাঁটাগুলো সংক্রমণ ছড়াচ্ছে।এত দিন আমরা জেনে আসছি, সংক্রমিত হওয়ার পরে সুস্থ হয়ে মানবদেহে অ্যান্টিবডি তৈরি হলে, প্রথমেই তা শেষ করে স্পাইক প্রোটিনকে।

 

জার্মানির এক দল বিশেষজ্ঞ দাবি করেছেন, অ্যান্টিবডি প্রতিরোধ করার মত ক্ষমতা রয়েছে করোনা ভাইরাসের। ফলে স্পাইক প্রোটিনের ধারেকাছেও ঘেঁষতে পারে না ওই অ্যান্টিবডি।

 

‘সায়েন্স’ নামক একটি পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণাপত্রটি।আল্ট্রা-হাই রেজ্যুলিউশন মাইক্রোস্কোপি পদ্ধতির সাহায্যে পরীক্ষা করে জার্মানির ‘ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইন্সটিটিউট অব বায়োফিজিক্স’-এর গবেষকেরা দাবি করছেন, করোনাভাইরাসের উপরিভাগে স্পাইক প্রোটিনকে ঢেকে রেখেছে শর্করা জাতীয়-অণু ‘গ্লাইক্যান’।

 

কাঁটার মতো দেখতে স্পাইক প্রোটিনটির মাথার অংশ গোলাকার। নীচের অংশ একটি লম্বা স্ট্যান্ড।জার্মানির ‘ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইন্সটিটিউট অব বায়োফিজিক্স’-এর গবেষকেরা আল্ট্রা-হাই রেজ্যুলিউশন মাইক্রোস্কোপিক পদ্ধতির সাহায্যে পরীক্ষা করে দাবি করেছেন যে, করোনা ভাইরাসের উপরিভাগের স্পাইক প্রোটিনকে ঢেকে রেখেছে শর্করা জাতীয়-অণু ‘গ্লাইক্যান’।

 

কাঁটার মতো দেখতে স্পাইক প্রোটিনটির মাথার অংশ গোলাকার। নীচের অংশটি দেখতে একটি লম্বা স্ট্যান্ড এর মত।গবেষণায় লেখা হয়েছে, এই লম্বা স্ট্যান্ডটি বেশ নমনীয়।

 

এবং এটি বেশ ব্যাপকভাবে নড়াচড়া করতে পারে। সংক্রমিত কোষটিকে স্ক্যান করে ফেলে সে। এবং সেই অনুযায়ী গায়ে চাপিয়ে ফেলে গ্লাইক্যান-বর্ম।ভাইরাসের এই চরিত্রটি প্রতিষেধক তৈরিতে বিশেষভাবে সাহায্য করবে বলে দাবি করেছেন বিজ্ঞানীরা।