আজ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সালমানকে হত্যার চেষ্টা করেছিল যে কারণে

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ বলিউডের ভাইজানখ্যাত সালমান খানকে খুনের চেষ্টা করে যাচ্ছিল কুখ্যাত গ্যাংয়ের এক শার্প শুটার।সম্প্রতি এক রেশন ডিলারের খুনের তদন্তে পুলিশের হাতে ধরা পড়ায় সালমানকে হত্যার সব পরিকল্পনা ভেস্তে গেল সেই শার্প শুটারের।

 

ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবর, গত ১৫ আগস্ট রাহুল ওরফে সাঙ্গা ওরফে বাবা ওরফে সুন্নি নামে এক শার্প শুটারকে গ্রেফতার করে ফরিদাবাদ পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ। তার সঙ্গে আরও চার ব্যক্তিকে ধরা হয়েছে।

 

রাহুলের কাছ থেকেগুলি ভরা পিস্তল উদ্ধার করা হয়েছে।পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে সালমানকে খুনের পরিকল্পনার চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে রাহুল।রাহুল জানায়, সালমান খানকে হত্যার পরিকল্পনা করেছিল তারা।

 

নিয়মিত ভাইজানের বান্দ্রার বাড়ির ওপর ছিল নজরদারি৷ রেইকি করা হয়েছিল আশপাশ৷ কখন তিনি বাড়ির বাইরে যান, কোথায় কোথায় যেতেন- সবই নজরে রাখা হতো৷ কিন্তু লকডাউনের পুরো সময়টা প্যানভেলের ফার্ম হাউজে কাটিয়েছেন সালমান খান।

 

যে কারণে সালমানকে নাগালে পায়নি রাহুল।সালমানকে কেন খুন করতে চেয়েছিল রাহুল সেই রহস্যও জানতে পেরেছে ফরিদাবাদ পুলিশ।এ বিষয়ে ডিসিপি হেডকোয়ার্টার্স রাজেশ দুগ্গাল জানিয়েছেন, রাহুল কুখ্যাত গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইয়ের গ্যাংয়ের একজন সদস্য।

 

২০১৯-এ বিষ্ণোই গ্যাংয়ের সঙ্গে যুক্ত হয় সে।আপাতত লরেন্স যোধপুর জেলে রয়েছে। জেলে থেকেই খুনের পরিকল্পনা করে সে। সেজন্য রাহুলকে বেছে নেয় সে। বেশ কিছুদিন আগে লরেন্সের সঙ্গে দেখাও করে রাহুল।

 

এছাড়া ২০১৮ সালে হায়দরাবাদ থেকে গ্রেফতার হওয়া সালমানকে হত্যা পরিকল্পনাকারী সম্পত নেহরার সঙ্গেও যোগাযোগ ছিল রাহুলের।রাজেশ দুগ্গাল আরও জানিয়েছেন, লরেন্সের সঙ্গে সালমানের শত্রুতা পুরনো।

 

১৯৯৮ সালে ‘হাম সাথ আট হ্যায়’বলি মুভির শুটিংয়ে রাজস্থানে গিয়ে কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা করে সালমান খান। এরপর থেকেই সেখানের বিষ্ণোই উপজাতির রোষের মুখে পড়েন সালমান।

 

কারণ বিষ্ণোই সম্প্রদায়ে হরিণকে পূজা করার রীতি রয়েছে। হরিণ হত্যাকে এ গোষ্ঠীতে মৃত্যুদণ্ডের মতো শাস্তিযোগ্য অপরাধ মনে করা হয়। ঘটনার পর থেকেই প্রকাশ্যে সালমানকে হত্যার হুমকি দিয়ে চলেছেন লরেন্স।তথ্যসূত্র: ডিএনএ, বলিউড হাঙ্গামা, টাইমস অব ইন্ডিয়া