আজ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

পাকিস্তানি তালেবান নেতাকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে জাতিসংঘ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ সন্ত্রাসবাদী সংগঠন তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি) নেতা নূর ওয়ালী মেহসুদকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে জাতিসংঘ। আল-কায়েদার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা, সমর্থন, অর্থায়ন, পরিকল্পনা ও সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অংশ নেওয়ার জন্য এই তালেবান নেতাকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিলের ১২৬৭ আইএসআইএল এবং আল-কায়েদা নিষেধাজ্ঞ কমিটি গত ১৬ জুলাই মেহসুদকে (৪২) আইএসআইএল (দায়েশ) ও আল-কায়েদা নিষেধাজ্ঞার তালিকায় যুক্ত করেছে। ফলে পাকিস্তানি এই নাগরিকের সম্পদ জব্দ, ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা এবং অস্ত্র নিষিদ্ধকরণের বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

নিষেধাজ্ঞা কমিটি বলেছে, মেহসুদকে আল-কায়েদার সঙ্গে যুক্ত সংস্থার সঙ্গে সঙ্গে সম্মিলিতভাবে কাজকর্ম বা ক্রিয়াকলাপে অর্থায়ন, পরিকল্পনা এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড সম্পাদনে অংশ নেওয়ার জন্য তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

টিটিপির সাবেক নেতা মাওলানা ফজলুল্লাহর মৃত্যুর পর, ২০১৮ সালের জুনে মেহসুদকে তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তানের নেতা হিসেবে মনোনীত করা হয়।

টিটিপিকে আল-কায়েদার সঙ্গে সহযোগিতার অভিযোগে ২৯ জুলাই, ২০১১ সালে কালো তালিকাভুক্ত করেছিল জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিল।

নূর ওয়ালী মেহসুদের নেতৃত্বে টিটিপি পাকিস্তানজুড়ে অসংখ্য মারাত্মক সন্ত্রাসী হামলার দায় স্বীকার করেছে। এর মধ্যে রয়েছে ২০১৫ সালে জুলাই মাসে উত্তর ওয়াজিরিস্তানে পাকিস্তানি নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে একটি বড় ধরনের সন্ত্রাসী হামলা এবং ২০১৯ সালের আগস্টে খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশে পাকিস্তানি সেনাদের বিরুদ্ধে বোমা হামলা।

এই দলটি ২০১০ সালের ১৯ মে লন্ডনের টাইমস স্কয়ারে বোমা হামলার চেষ্টা করার জন্য দায় স্বীকার করেছিল এবং ২০১০ সালের এপ্রিলে তারা পেশোয়ারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কনস্যুলেটে হামলা চালিয়েছিল। এই হামলায় কমপক্ষে ছয়জন পাকিস্তানি নিহত এবং ২০ জন আহত হয়েছিল।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের দক্ষিণ ও মধ্যএশিয়া বিষয়ক ব্যুরো (এসসিএ) একটি টুইট বার্তায় জানিয়েছে, তারা জাতিসংঘ কর্তৃক আইএসআইএল এবং আল-কায়েদার অনুরূপ নিষেধাজ্ঞার তালিকায় মেহসুদকে যুক্ত করাকে স্বাগত জানায়।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘টিটিপি পাকিস্তানে অনেক মারাত্মক সন্ত্রাসী হামলার জন্য দায়ী। আমেরিকা ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে দেশীয়ভাবে নূর ওয়ালীকে সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করেছিল।

সুরক্ষা কাউন্সিলের কালো তালিকাভুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সেসব রাজ্যকে তহবিল এবং অন্যান্য আর্থিক সম্পদ বা মনোনীত ব্যক্তি ও সত্তার অর্থনৈতিক সংস্থান দেরি না করে হিমায়িত করা দরকার।

সূত্র : র‍্যাডিফ নিউজ।