আজ ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

দাউদ ইব্রাহিম করাচিতেই আছে, ২৭ বছর পর স্বীকার করলো পাকিস্তান

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ ১৯৯৩ সালের ভয়াবহ মুম্বাই বিস্ফোরণের ২৭ বছর পর পাকিস্তান স্বীকার করলো ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিম করাচিতেই আছে। শনিবার ইমরান খান সরকার ৮৮ জন জঙ্গি নেতার নাম ঘোষণা করে তাদের বিরুদ্ধে নানা ধরণের নিষেধাজ্ঞা জারির কথা ঘোষণা করেছে।

এই তালিকায় দাউদ ইব্রাহিমের নাম আছে এবং তার করাচির তিনটি সম্পত্তির উল্লেখও করা হয়েছে এতে। সম্পত্তিগুলো হল- সৌদি মসজিদ ক্লিফটন এলাকায় দাউদ এর বাড়ি, করাচির থার্টিএথ স্ট্রিটের হাউস নম্বর থার্টি সেভেন এর একটি প্রাসাদোপম বাড়ি এবং করাচির নূরাবাদ এলাকার একটি প্রাসাদ। ভারতের বারবার দাবি সত্ত্বেও পাকিস্তান করাচিতে দাউদের অবস্থানের কথা অস্বীকার করে আসছিলো। শনিবার প্রথম এই মর্মে স্বীকারোক্তি এল। উল্লেখযোগ্য, দাউদ ইব্রাহিম ১৯৯৩ সালের মুম্বইয়ের সিরিয়াল বিস্ফোরণের মাস্টারমাইন্ড। যে বিস্ফোরণে ২৬৭ জনের মৃত্যু হয়।

এই বিস্ফোরণের পরই দাউদ দুবাই হয়ে পাকিস্তানে আশ্রয় নেয়। প্রশ্ন হচ্ছে, এতদিন অস্বীকার করার পর পাকিস্তান হঠাৎ শনিবার দাউদের নাম প্রকাশ করলো কেন? তথ্যাভিজ্ঞ মহল মনে করছে প্যারিসের ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্সের কালো তালিকাভুক্ত হওয়ার ভয়েই ইমরান সরকার ৮৮ জন মাফিয়া ডন, জঙ্গি নেতা ও সংগঠনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা ঘোষণা করেছে। এই ব্যবস্থাগুলোর মধ্যে আছে সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত, আর্থিক লেনদেনে নিষেধাজ্ঞা, ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা ইত্যাদি।

দাউদ ছাড়াও যাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি হচ্ছে তারা হল, জামাত উদ দুয়ার প্রধান হাফিজ সাইয়েদ, জৈশ ই মোহাম্মদ প্রধান মাসুদ আজহার, ২৬/১১ এর মাস্টারমাইন্ড জাকির উল লাকভি, পাক তালিবান প্রধান মোল্লা ফজলুর বা মোল্লা রেডিও, হাক্কানি গ্রুপের প্রধান মোহাম্মদ ইয়াসিন মোল্লা প্রভৃতি। এছাড়াও নিষেধাজ্ঞা জারি হচ্ছে তেহরিক ই তালিবান, এ কিউ গোষ্ঠী, আল কায়েদা এবং আই এস আই সি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। পাকিস্তানের এই ঘোষণার পরই ভারত দাবি জানিয়েছে দাউদ ইব্রাহিমকে ব্যক্তিগত সন্ত্রাসবাদী ঘোষণা করার। শনিবার পাকিস্তানের এই ঘোষণার পর ভারত যে দাউদকে প্রত্যর্পণের দাবি আরও জোরদার করে তুলবে তা বলাই বাহুল্য।