আজ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

১৩ তারিখ রাত সাড়ে ১০টায় সুশান্তের বাড়ির সমস্ত আলো বন্ধ করে দেওয়া হয়

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ যত দিন যাচ্ছে, সুশান্ত মামলা যেন ততই জটিল হয়ে উঠছে। প্রতি মুহূর্তে উঠে আসা নতুন তথ্য সকলকে অবাক করে দিচ্ছে। ১৪ জুন, বান্দ্রার ফ্ল্যাটে মৃত্যু হয় সুশান্ত সিং রাজপুতের। এমনটাই সকলে জানেন। তবে সুশান্তের প্রতিবেশী যে দাবি করছেন তা আরও বিস্ফোরক।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সুশান্তের বাড়ির আলো ১৩ তারিখ রাতেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। যে সময় বাড়ির আলো বন্ধ হয়েছিল, সাধারণত সেই সময় আলো বন্ধ হয় না।

প্রতিবেশীর দাবি, ১৩ তারিখ রাত ১০.৩০ থেকে ১০.৪৫ এর মধ্যে সুশান্তের ফ্ল্যাটের সমস্ত আলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। শুধুমাত্র রান্নাঘরের আলো জ্বলছিল। এর আগে কোনওদিনও ওর বাড়ির আলো এত তাড়াতাড়ি বন্ধ করে দিতে দেখা যায় নি। সুশান্তকে ৪ পর্যন্ত জেগে থাকতেই দেখা যেত, তাই ওর ঘরের আলোও জ্বলত। আলো রাতে বন্ধ হয় না বললেই চলে। তবে ওইদিন সমস্ত আলো বন্ধ ছিল। আর ১৩ তারিখ বাড়িতে কোনও পার্টিও হয়নি।

প্রতিবেশীর এমন দাবিতে আরও বেশি করে সুশান্ত মৃত্যু রহস্য নতুন মোড় নিল। পাশাপাশি, প্রতিবেশীর এই দাবির পড়ে সিদ্ধার্থ পিঠানির ভূমিকা নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন উঠছে। প্রসঙ্গত, সিদ্ধার্থ পিঠানি ও দীপেশ ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের ক্য়ামেরার সামনে বলেছিলেন, বাড়ির ওয়াচম্যানকে তিনি চাবিওয়ালাকে ফোন করতে বলেছিলেন। অথচ, ওয়াচম্যান জানান, তাঁর কাছে কেউ এসে কিছুই বলেন নি।

শুক্রবার জি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে চাবিওয়ালা জানান, তাঁকে সিদ্ধার্থ পিঠানিই ফোন করেছিলেন। এখানেই শেষ নয়, লক ভাঙার সঙ্গেই তাঁকে চলে যেতে বলা হয়। ঘরের দিকে তাকাতেও দেওয়া হয়নি।