আজ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

উপকূলে বন্যার তাণ্ডব, পানিবন্দি লাখ লাখ মানুষ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ মে মাসে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের ছোবলে লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছিল সাতক্ষীরার কয়েকটি বেড়িবাঁধ। সমুদ্রের পানিতে প্লাবিত হয় আশাশুনির প্রতাপনগর ইউনিয়নের ১৭টি গ্রাম। জোয়ারের পানির অবাধ আসা-যাওয়ায় তিন মাস ধরে ভাসমান জীবনযাপন করে আসছিলেন সেখানকার মানুষ। এবার সেখানে দেখা দিয়েছে নতুন বিপদ। অবিরাম বৃষ্টিপাত এবং অস্বাভাবিক জোয়ারের তাণ্ডবে পাশের ইউনিয়ন শ্রিউলার ২১টি গ্রামও ভেসে গেল। ভেসে গেছে শত শত ঘেরের মাছ, গৃহপালিত পশু এবং অনেক ঘরবাড়িও।

সাতক্ষীরার মতো খুলনা, বাগেরহাট, বরগুনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর, নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুরের বিস্তীর্ণ উপকূল এখন পানির নিচে। কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে চরম মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন। সড়ক যোগাযোগসহ স্বাভাবিক জীবনযাপনে নেমে এসেছে মারাত্মক দুর্ভোগ। উপকূলীয় এলাকার নদনদীর পানি দু’কূল উপচে উঠেছে। এতে নতুন নতুন বাঁধ ভেঙে মাছ, ফসল ও মৌসুমি সবজির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জোয়ারের তোড়ে বিধ্বস্ত হচ্ছে অনেক বাঁধ। নদীভাঙনও গতি পেয়েছে।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, এ দুর্যোগ থেকে শিগগিরই মুক্তি পাচ্ছে না উপকূলের মানুষ। চলতি মাসজুড়ে উপকূলীয় অঞ্চলে অতিবৃষ্টি লেগে থাকতে পারে। জোয়ার স্বাভাবিক পর্যায়ে নেমে এলেও অতিবৃষ্টিতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে।

দুর্যোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আকস্মিক বন্যায় উপকূলীয় এলাকার কয়েক লাখ মানুষের তীব্র হাহাকার শুরু হয়েছে। পূর্বপ্রস্তুতি তো ছিলই না, দুর্যোগ সৃষ্টির পরও পদক্ষেপ নিতে বিলম্ব হচ্ছে। ফলে সাধারণ মানুষ খাদ্য ও মাথা গোঁজার জায়গা নিয়ে চরম বেকায়দায় পড়েছেন।

তবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আতিকুল হক বলেন, উপকূলীয় জেলাগুলোতে এই বন্যা পরিস্থিতি একেবারেই আকস্মিক। ফলে আগে থেকে বড় ধরনের প্রস্তুতি নেওয়ার সুযোগ ছিল না। তবে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দুর্গত মানুষের জন্য ত্রাণ কার্যক্রমের দিকে মনোযোগ দেওয়া হয়েছে। রবিবার জরুরি ভিত্তিতে সাত জেলায় এক হাজার ১০০ টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ত্রাণকাজে ব্যবহারের জন্য ১৪ লাখ টাকা ও ১০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণ মজুদ রয়েছে। প্রয়োজনে আরও বরাদ্দ দেওয়া হবে।

এদিকে, উপকূলের এ পরিস্থিতিকে আকস্মিক বন্যা হিসেবে দেখছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রও। সংস্থার নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভুঁইয়া জানান, দক্ষিণ-পশ্চিম ও দক্ষিণ-মধ্য উপকূলীয় অঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হবে। অতিবৃষ্টি অব্যাহত থাকলেও জোয়ার স্বাভাবিক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখানকার পানি নেমে আসবে। মধ্যাঞ্চলে স্বাভাবিক বন্যা পরিস্থিতিও উন্নতির দিকে। বর্তমানে পদ্মা, আত্রাই, ধলেশ্বরী ও যমুনা নদীর চারটি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে। তবে ক্রমে পানি নিচের দিকে প্রবহমান।

অন্যদিকে, আবহাওয়াবিদ ড. মো. আবুল কালাম মল্লিক বলেন, মৌসুমি বায়ু দেশের ওপর সক্রিয় থাকা এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে প্রবল অবস্থায় বিরাজ করছে। এর সঙ্গে স্বাভাবিকের চেয়ে এক থেকে দুই ফুট উচ্চতায় জোয়ার আসছে। এর সঙ্গে উপকূলজুড়ে প্রবল বৃষ্টিপাত। সব মিলিয়ে ওই অঞ্চলে নাকাল অবস্থা। এ পরিস্থিতি আরও দু-এক দিন অব্যাহত থাকতে পারে। আগস্টের শুরু থেকেই উপকূলীয় অঞ্চলে বৃষ্টিপাত স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হচ্ছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, সোমবার ঢাকা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। কোথাও কোথাও ভারি বৃষ্টিরও সম্ভাবনা রয়েছে।

গতকাল রবিবার দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ডিমলায়, ১০০ মিলিমিটার। এ ছাড়া অন্য এলাকার মধ্যে ঢাকায় ২৩ মিলিমিটার, চট্টগ্রামে ৩৪, সন্দ্বীপে ৬৭, চাঁদপুরে ৭৬, কক্সবাজারে ৭৬, সাতক্ষীরায় ৪৮, পটুয়াখালীতে ৫৫ এবং ভোলায় ৪৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

বরিশাল : নদনদীর রেকর্ড ভাঙা জোয়ারের পানি নেমে যাচ্ছে দক্ষিণাঞ্চলের জনপদ থেকে। কোথাও কোথাও নেমেও গেছে। তবে ফসলের সর্বনাশা ক্ষতি করে গেছে এ পানি। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে গ্রীষ্ফ্মকালীন শাকসবজি, সদ্য রোপণ করা আমন ধানের চারা ও আমনের বীজতলা এবং পানের বরজ।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের বরিশালের অতিরিক্ত পরিচালক মো. আফতাব উদ্দিন বলেন, ‘সবেমাত্র পানি কমতে শুরু হয়েছে। ছয় দিন পর কিছুটা রোদের তাপও পড়েছে। মাঠ পর্যায় থেকে ক্ষয়ক্ষতির তথ্য পেতে আরও এক সপ্তাহ সময় লাগবে। তবে প্রাথমিকভাবে এ পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, বরিশাল বিভাগে ৩০ ভাগ ফসলি জমি জোয়ারের পানিতে আক্রান্ত হয়েছে।’

কৃষি অফিসের দেওয়া তথ্যমতে, বিভাগের ছয় জেলায় এক লাখ ২৪ হাজার ৪০৬ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে কৃষকদের দাবি, ক্ষতির পরিমাণ আরও বেশি। এ প্রসঙ্গে কৃষি অধিপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মো. আফতাব উদ্দিন বলেন, যেহেতু পানি দ্রুত নেমে যাচ্ছে, এরপর টানা কয়েক দিন রোদ থাকলে ক্ষতির পরিমাণ তেমন বেশি হবে না।

সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার শ্রিউলা, প্রতাপনগর ও আশাশুনি সদর ইউনিয়নের ৪৫টি গ্রামের ওপর দিয়ে নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারের পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এই উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। সুপার সাইক্লোন আম্পানে ধসেপড়া বেড়িবাঁধ দিয়েই পার্শ্ববর্তী খোলপেটুয়া নদী ও কপোতাক্ষ নদের প্রবল জোয়ারের পানি প্রবেশ করায় প্রতিদিন নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় অনেক এলাকায় খাদ্য পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। মানবিক বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে দুর্গত এলাকার হাজার হাজার মানুষ। দুর্গত এলাকায় শত শত চিংড়ি ঘের ভেসে গেছে। কয়েক হাজার কাঁচা ঘরবাড়ি ধসে পড়েছে। এ ছাড়া শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নের লেবুবুনিয়া এলাকায় বেড়িবাঁধ ধসে পড়ায় সেখানেও পাঁচটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড ১ ও ২-এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের ও সুধাংশু সরকার জানান, নদীতে প্রায় তিন ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তা ছাড়া আবহাওয়া অনুকূলে নয়। একটু শান্ত অবস্থায় না ফেরা পর্যন্ত সংস্কার কাজ করা যাচ্ছে না।

নোয়াখালী ও হাতিয়া : নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। এক সপ্তাহ ধরে অস্বাভাবিক জোয়ারের তোড়ে উপজেলার মেঘনা নদীর কোলঘেঁষা চরঈশ্বর, সুখচর, নলচিরা ও নিঝুমদ্বীপ ইউনিয়নে ভাঙা বেড়িবাঁধ ও কোথাও কোথাও বেড়িবাঁধ (বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ) উপচে পড়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে বন্যা দেখা দিয়েছে। এতে করে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের শতাধিক গ্রামে লক্ষাধিক লোক পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। খাদ্যাভাব, বিশুদ্ধ পানীয় ও বাসস্থানের অভাবে পানিবন্দি লোকজন মানবেতর জীবন যাপন করছেন। বন্যার্তদের মধ্যে রোববার দিনব্যাপী ৪০ টন চাল বরাদ্দ দিয়েছে জেলা প্রশাসন। বন্যায় উপজেলার চার কোটি টাকার মাছ ভেসে গেছে। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও সংশ্নিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কয়রা (খুলনা) : গত কয়েক দিনের অব্যাহত জোয়ারের চাপে খুলনার কয়রা উপজেলার কয়েকটি স্থানের বাঁধ ভেঙে ও নিচু স্থান ছাপিয়ে নতুন করে ছয়টি গ্রামসহ দশটি গ্রাম প্লাবিত হয়ে পড়ে। এতে প্রায় ৩০ হাজার মানুষ ফের পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে ভেঙে যাওয়া কয়রা সদর ইউনিয়নের ঘাটাখালী বাঁধ শনিবার নিজ উদ্যোগে মেরামত করেছে গ্রামবাসী। এ ছাড়া ঘূর্ণিঝড় আম্পানের পর উত্তর বেদকাশী ও মহারাজপুর ইউনিয়নের দুই স্থানের বাঁধ মেরামত না হওয়ায় সেখানকার দুটি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ গত তিন মাস ধরে জোয়ার-ভাটায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

কয়রা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর জানিয়েছেন, নদীতে জোয়ারের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় ইউনিয়নের ঘাটাখালী এলাকার রিং বাঁধের পাঁচটি স্থান ভেঙে যায়।

বরগুনা ও আমতলী : জেলার পাথরঘাটা উপজেলার পদ্মা এলাকার বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে কয়েকটি গ্রাম। আবার কোথাও কোথাও নিচু বাঁধ দিয়ে উপচে পড়েছে জোয়ারের পানি। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মধ্যে রয়েছে সদর উপজেলার ডালভাঙা, মোল্লার হোরা, গুলিশাখালী, গোলবুনিয়া, পালের বালিয়াতলী, পোটকাখালী ও কুমড়াখালী আবাসন, পাথরঘাটা উপজেলার পদ্মা, রুহিতা, আমতলী উপজেলার বালিয়াতলী, পশ্বরবুনিয়া, তালতলী উপজেলার জয়ালভাঙ্গা ও তেঁতুলবাড়িয়া।

এ ছাড়া পায়রা নদী, বাঁশবুনিয়া এবং গাজীপুরের গাবুয়া নদীতে জোয়ারে পানি বৃদ্ধি এবং অতিবৃষ্টিতে তলিয়ে যাওয়া আমতলী ও তালতলী উপজেলার ৩০টি গ্রামের ২০ হাজার মানুষ এখন পানিবন্দি অবস্থায় জীবনযাপন যাপন করছে। গ্রামে গ্রামে জলাবদ্ধতা দেখা দেওয়া আমনের বীজতলা এবং আউশ ধানের ক্ষেত দুই-তিন ফুট পানির নিচে রয়েছে।

মোংলা (বাগেরহাট) : মোংলার পশুর নদসহ সুন্দরবনের সব নদনদীর পানি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে নদীতীরবর্তী নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। পানি বাড়ায় ফেরিঘাটের পন্টুন ও রাস্তা তলিয়ে যাওয়ায় ফেরি ভিড়তে এবং যানবাহন চলাচলে মারাত্মক বিঘ্ন ঘটছে। উপজেলার কানাইনগর এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের সদ্য নির্মিত বেড়িবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে তিনটি গ্রাম। এ ছাড়া পশুর নদের জোয়ারের প্লাবন ছুঁয়েছে চাঁদপাই, চিলা, বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়নের আরও ১০টি গ্রাম। অন্যদিকে, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজ করায় মোংলা সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত বলবৎ রয়েছে।

পটুয়াখালী : অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে প্রতিদিন দু’দফা ডুবছে আর জেগে উঠছে পটুয়াখালীর পৌরশহরসহ উপকূলের জনপদ। গত মঙ্গলবার থেকে গতকাল রোববার পর্যন্ত এভাবে জোয়ারের পানির সঙ্গে বসবাস করছে পটুয়াখালী পৌরবাসীসহ উপকূলের মানুষ। গতকাল রোববার দুপুরেও জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যায় জেলার উপকূলীয় রাঙ্গাবালী, গলাচিপা, কলাপাড়া, দশমিনা, বাউফল, মির্জাগঞ্জ, দুমকী উপজেলার ছোট-বড় অন্তত অর্ধশত চরাঞ্চল। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়ে ওইসব এলাকার লক্ষাধিক মানুষ।

ভোলা : মেঘনা নদীতে পানির উচ্চতা কমায় ভোলায় আর নতুন করে কোনো এলাকা প্লাবিত হয়নি। তবের সদর উপজেলার পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের ১২টি গ্রাম রোববার সকালেও প্লম্নাবিত হয়েছে। প্লাবিত এলাকার শত শত পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। নিরুপায় হয়ে অনেকে ঘরের মধ্যে মাচা করে বসবাস করছে। এ অবস্থার উত্তরণে বাঁধ নির্মাণে দাবি ক্ষতিগ্রস্তদের। এদিকে দিনরাত ভাটার সময় দুই শতাধিক শ্রমিক নিয়ে ভাঙা বাঁধ পুনর্নির্মাণে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। এদিকে রোববার দুর্গত এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বাঘার হাওলা, মুরাদছবুল্যাহ, রামদাসপুর কান্দিসহ কয়েকটি গ্রাম এখনও তলিয়ে রয়েছে।

কমলনগর (লক্ষ্মীপুর) : মেঘনা নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারে উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতি উপজেলার নিম্নাঞ্চল পাঁচ দিন ধরে প্লাবিত হচ্ছে। জোয়ারে দুই উপজেলার অন্তত তিন হাজার বসতঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পানিতে ভেসে গেছে কয়েকশ’ পুকুর ও ঘেরের কোটি কোটি টাকার মাছ।

অর্ধলাখ মানুষ দিনে দু’বার করে আট ঘণ্টা পানিবন্দি অবস্থায় থেকে মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন।

রোববার বিকেলেও জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে আড়াই থেকে তিন ফুট বেড়ে মেঘনা তীরবর্তী কমলনগর উপজেলার মতিরহাট, চরসামছুদ্দিন, পশ্চিম মার্টিন, নাছিরগঞ্জ, কাদিরপণ্ডিতেরহাট, পশ্চিম চরলরেন্স, চরজগবন্ধু, মাতাব্বরহাট, লুধুয়া ফলকন ও পাটারীরহাট এবং রামগতি উপজেলার সুজনগ্রাম, জনতা বাজার, পশ্চিম বালুরচর, মুন্সীরহাট, সেবাগ্রাম, চরআলগী, বড়খেরী, চরগাজী, চরগজারিয়া ও তেলিরচর এলাকা প্লাবিত হয়।

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) : মঠবাড়িয়ার নিম্নাঞ্চল অতি জোয়ারের পানিতে ডুবে রয়েছে। গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টি ও স্বাভাবিকের চেয়ে ৩-৪ ফুট পানি বৃদ্ধিতে উপজেলায় বসতবাড়ি, রাস্তাঘাট পানিতে ডুবে রয়েছে। উপজেলার সবচেয়ে বেশি প্লাবিত এলাকা হলো বলেশ্বর নদ-তীরবর্তী খেতাচিড়া, কচুবাড়িয়া, হোগলপাতি, সাংরাইল, মাঝেরচর, বড়মাছুয়া, ভোলমারা ও ছোটমাছুয়া। এ ছাড়া ১১ ইউনিয়নের মিরুখালী, বড়শৌলা, ছোটশৌলা, তেঁতুলবাড়িয়া, হারজী নলবুনিয়া, ওয়াহেদাবাদ, নাগ্রাভাঙ্গা ও বাদুরা।

গোপালগঞ্জ : গোপালগঞ্জে অব্যাহত বর্ষণে সব নদনদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে জেলার পাঁচ উপজেলার ৪৬টি ইউনিয়নের ৩২৫ গ্রামের বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। জেলার ১১৪টি বিলের পানি অস্বাভাবিক বেড়ে নিম্নাঞ্চলের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি ২০৩৩৯টি পরিবারের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে।