আজ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

২৩ কোটি ইনস্টাগ্রাম-টিকটক-ইউটিউব ইউজারের তথ্য ফাঁস

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ ফের ডার্ক ওয়েবে চলে এল ইউজারদের নানাবিধ গোপনীয় তথ্য। পরিসংখ্যান বলছে, কমপক্ষে ২৩ কোটি ইনস্টাগ্রাম, টিকটক এবং ইউটিউব ব্যবহারকারীদের যাবতীয় গোপনীয় তথ্য ফাঁস হয়ে সরাসরি ডার্ক ওয়েবে চলে এসেছে।এ ঘটনায় গোটা বিশ্বজুড়েই তীব্র নিন্দা শুরু হয়েছে ফেসবুক, বাইটডান্স এবং গুগলের উপরে।

 

ইউজারদের কন্ট্যাক্ট ডিটেলস, ছবিসহ আরো বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ডার্ক ওয়েবের নাগালে।প্রো-কনজিউমার ওয়েবসাইট কম্প্যারিটেক-এর সিকিওরিটি রিসার্চারেরা বলছেন, ব্যবহারকারীদের এমনতর তথ্য ফাঁসের ক্ষেত্রে কাজ করছে নিরাপত্তাহীন একটি ডেটাবেস।সম্প্রতি ফোর্বস-এর একটি রিপোর্টে সেই সিকিওরিটি রিসার্চারদের কথা উদ্ধৃত করে আরো বলা হয়েছে, বেশ কিছু ডেটাসেটের তথ্যই ফাঁস হয়ে গিয়েছে।

 

সূত্রের খবর, ডিপ সোশ্যাল নামের একটি কোম্পানি ইনস্টাগ্রাম এবং ইউটিউবের ডেটাবেস থেকে ইউজারদের ওয়েব-স্ক্র্যাপড ডেটা অ্যাক্সেস করছে। কিন্তু কি এই ওয়েব স্ক্র্যাপিং? বিভিন্ন সাইটের ওয়েব পেজ থেকে তথ্য সংগ্রহের পদ্ধতিকে বলা হয় ওয়েব স্ক্র্যাপিং। এই পদ্ধতি সম্পূর্ণরূপে বেআইনি না হলেও ইউজারদের গোপনীয়তার জন্য এটি কোনো মতেই সম্মত নয়।

 

২০১৯ সালেও ঠিক এমনই একটি ডেটা স্ক্র্যাপিংয়ের ঘটনা সামনে আসে। লক্ষ লক্ষ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁসও হয়ে গিয়েছিল সে বার।সিকিওরিটি রিসার্চার বব ডিয়াচেনকোর কথায়, ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউব ডেটাবেসের অনুরূপ তিনটি কপি ১ আগস্টের মধ্যে ফাঁস হয়ে যায়। ওই ডেটাবেস থেকে ইউজারদের প্রোফাইলের নাম, ছবি, বয়স, লিঙ্গ, অ্যাকাউন্টের বিবরণ, ফলোয়ার ইত্যাদি তথ্য এবং ইমেল আইডি প্রকাশিত হয়েছে।

 

পাশাপাশিই সিকিউরিটি রিসার্চারেরা আশঙ্কা করছেন যে, ফাঁস হওয়া ডেটা স্ক্যাম বা ফিশিংয়ের উদ্দেশ্যেই ব্যবহার করা হতে পারে।অন্যদিকে ডিপ সোশ্যালের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য হিসেবে জানা গিয়েছে যে, এটি হংকং-ভিত্তিক ফার্ম ‘সোশ্যাল ডেটা’র দ্বারা পরিচালিত। সোশ্যাল ডেটা, গোটা বিষয়টি স্বীকার করে নেওয়ার পর ডেটা অ্যাক্সেসও বন্ধ করে দেয়।

 

পরবর্তীতে এই সংস্থা ডিপ সোশ্যালের সঙ্গে যাবতীয় যোগাযোগ বিছিন্ন করে।তবে অভিযোগ সম্পূর্ণভাবে অস্বীকার করেছে ‘সোশ্যাল ডেটা’ নামক সংস্থাটি। ‘দ্য নেক্সট ওয়েব’কে সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে যে, ব্যবহারকারীদের কোনো গোপন ডেটা অ্যাক্সেস করেনি ‘সোশ্যাল ডেটা’। সূত্র: এইসময়।