আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বিশ্বের সবচেয়ে বড় বোমা বিস্ফোরণের সেই ফুটেজ প্রকাশ করেছে রাশিয়া (ভিডিও)

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃনতুন প্রকাশিত ফুটেজে প্রায় ছয় দশক আগে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী থার্মোনিউক্লিয়ার বোমার বিস্ফোরণ দেখানো হয়েছে।
১৯৬১ সালের ৩০ অক্টোবর রাশিয়া যখন থার্মোনিউক্লিয়ার বোমা আর্কটিক সাগরের উপর ফেলেছিল, তখন এটি ইতিহাসের বৃহত্তম মানবসৃষ্ট বিস্ফোরণ তৈরি করে। এতদিন পরে সেই বিস্ফোরণের ফুটেজ প্রকাশ করা হয়েছে।

 

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক সংস্থা রোসাতোম পারমাণবিক শিল্পের ৭৫ তম বার্ষিকী উপলক্ষে হিরোশিমায় যুক্তরাষ্ট্রের ফেলা পারমাণবিক বোমার ক্ষমতার চেয়ে প্রায় ৩০০০ গুণ বেশি শক্তিশালী এই থার্মোনিউক্লিয়ার বোমার বিস্ফোরণের সেই ফুটেজ প্রকাশ করা হয়েছে।

 

ভিডিওতে অনেক দূর থেকে ব্যাপক সেই বিস্ফোরণ দেখা যাচ্ছে। রাশিয়ার তৈরি থার্মোনিউক্লিয়ার বোমাটির নাম ‘জার বোম্বা’। এর দৈর্ঘ্য আট মিটার এবং ওজন প্রায় ২৭ টন এবং এটি বহন করার জন্য একটি বিশেষভাবে তৈরি বিমানের প্রয়োজন ছিল।

 

তুপোলিভ টিউ -৯৯ বোমারু বিমানের ক্রুদের চিত্রগ্রহণকারী একটি দ্বিতীয় বিমানের আরোহীদের বেঁচে থাকার সুযোগ দেওয়ার জন্য, বিশালাকার বোমাটির সঙ্গে একটি বড় প্যারাশুট যুক্ত করে দেওয়া হয়েছিল। যাতে এটি ধীরে পতিত হয়। এই সময়ে উভয় বিমান নিরাপদ দূরত্বে চলে যেতে সক্ষম হয়।

 

থার্মোনিউক্লিয়ার বোমাটি যখন আর্কটিক সাগরের নভায়া জেমলিয়া দ্বীপপুঞ্জের সুখয় নসের পরীক্ষার সাইটে প্রায় ৪ কিলোমিটার বিস্ফোরণ ঘটে এবং এ্টির শক ওয়েভ ৫৫ কিলোমিটার ব্যাসার্ধ পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। বোমাটির শক্তি এতটাই বেশি ছিল যে ১০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত নরওয়ে ও ফিনল্যান্ডের বাড়িঘরও এর কম্পনে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। এই বোমাতে ৫০ মেগাটন, ৫ কোটি টন টিএনটি শক্তি ছিল। যা হিরোশিমাতে ফেলা ৩ হাজার ৮০০ পারমাণবিক বোমার সমতুল্য।