আজ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

চেন্নাই সুপার কিংসে করোনার হানা

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ১৩তম আসরটি পুরোপুরি সরিয়ে নেয়া হয়েছে আরব আমিরাতে। সেখানে তিনটি ভিন্ন ভেন্যুতে হবে টুর্নামেন্টের পুরো ৬০টি ম্যাচ। এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো আমিরাতে হবে আইপিএলের খেলা। মূলত করোনা সংক্রমণ হার তুলনামূলক কম থাকায় আমিরাতকে বেছে নিয়েছে ভারত।

 

কিন্তু টুর্নামেন্ট শুরুর সপ্তাহ তিনেক আগে বড়সড় এক দুঃসংবাদই দিয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস। আমিরাতে করোনা পরীক্ষায় ভারতীয় এক পেসারসহ চেন্নাই দলের ১৩ জন সদস্যের নমুনার ফলাফলে পজিটিভ পাওয়া গিয়েছে। বাকি ১২ জন দলের সাপোর্ট স্টাফ ও সোশাল মিডিয়া টিমের অংশ ছিলেন।

 

এত সতর্কতার পরেও চেন্নাইয়ের এত জন সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় এখন খোঁজা হচ্ছে এর পেছনের কারণ। আর এতে শুরুতেই প্রশ্নের মুখে পড়েছে চেন্নাই অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির ভূমিকা। তবে সরাসরি ধোনির দায় নয়, বরং পরোক্ষভাবে তার ভূমিকা রয়েছে বলেই মন্তব্য সমালোচকদের।

 

আইপিএলে অংশ নেয়ার উদ্দেশ্যে গত ২১ আগস্ট ভারত থেকে আমিরাতে গিয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস। তার আগে ১৬ আগস্ট থেকে প্রথম দল হিসেবে চিপাকে পাঁচদিনের একটি অনুশীলন ক্যাম্পের আয়োজন করেছিল চেন্নাই ফ্র্যাঞ্চাইজি। ধারণা করা হচ্ছে, সেই ক্যাম্পের কারণেই করোনা হানা দিয়েছে চেন্নাই শিবিরে।

 

কিন্তু এখানে ধোনির ভূমিকা বা দায় কী? তার দায় হলো, চেন্নাইয়ের প্রধান নির্বাহীর মতে ধোনির একটি মেসেজের পরই সেই ক্যাম্প আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল দলটি। আর এখন যখন চেন্নাই দলে করোনা হানা দিয়েছে, তখন স্বাভাবিকভাবেই সামনে আসছে সেই ক্যাম্প ও ধোনির কথা।

 

চেন্নাইয়ের প্রধান নির্বাহী কাশি বিশ্বনাথ বলেছেন, ‘যখন টুর্নামেন্টের সূচি প্রকাশিত হয়, তখন আমি একটি ক্যাম্প আয়োজন করা যাবে কি না ভাবছিলাম। কেননা এটি করতে হলে বায়ো সিকিউর বাবলও তৈরি করতে হবে। আমি তাই ধোনিকে একটা মেসেজ দিয়েছিলাম, দুবাই যাওয়ার পাঁচদন আগে ক্যাম্প আয়োজন করা আদৌ দরকার আছে কি না অথবা এটি কার্যকরী হবে কি না।’

 

‘আমাদের অধিনায়ক নিজের ভাবনায় পরিষ্কার ছিলেন। সে আমাকে বলে, স্যার আমরা প্রায় ৪-৫ মাস ধরে খেলাধুলার মধ্যে নেই। চেন্নাইয়ে আমাদের সবাইকে এক হওয়ার দরকার। সেখানে আমরা যদি বায়ো সিকিউর বাবলে থাকি, তাহলে দুবাই যাওয়ার পর আমাদের জন্য সবকিছু সহজ হবে।’

 

ধোনির এ মেসেজের পরই ক্যাম্প করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় চেন্নাই সুপার কিংস। শুধু ভারতীয় ক্রিকেটারদের জন্য করা এ ক্যাম্পে ধোনি ছাড়াও সুরেশ রায়না, দীপক চাহার, শার্দুল ঠাকুর, আম্বাতি রাইডু, মুরালি বিজয় এবং বোলিং লক্ষ্মীপতি বালাজি অংশ নিয়েছিলেন।

 

চিপাক স্টেডিয়ামের খুব কাছেই চেন্নাইয়ের ত্রিপলিক্যান এলাকা। যেটি কি না চেন্নাইয়ের করোনা হটস্পট হিসেবে পরিচিত। এখনও পর্যন্ত চেন্নাইয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় পৌনে ২ লাখ, এ মহামারিতে প্রাণ হারিয়েছেন ২৬শ’র বেশি মানুষ। এর মধ্যে চিপাক স্টেডিয়ামে চেন্নাইয়ের অনুশীলন ক্যাম্প করাটাই এখন বড় প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।

 

তবে আরেকটি বিষয় খটকা তৈরি করছে। বৃহস্পতিবারের পরীক্ষায় ১৩ জনের করোনা পজিটিভ আসার আগে অন্তত ছয়টি পরীক্ষায় সবার করোনা নেগেটিভ পাওয়া গিয়েছে। কিন্তু হুট করেই দুইদিনের ব্যবধানে ১৩ জনের দেহে করোনা সংক্রমণ ঘটল কী করে?- সে প্রশ্নের উত্তরই খুঁজে বেড়াচ্ছে বিশেষজ্ঞরা।

 

গবেষণায় পাওয়া তথ্য অনুযায়ী করোনাভাইরাস এক মাস পর্যন্ত দেহে সুপ্তাবস্থায় থাকতে পারে। তাই চিপাকে করা ক্যাম্পের মাধ্যমে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।