আজ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়াতে বললেন শিক্ষামন্ত্রী

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ করোনার সময়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাকার্যক্রমে সম্পৃক্ত রাখা, শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন যাতে কোনোভাবে ব্যাহত না হয় সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও শিক্ষকদের দায়িত্ব রয়েছে।

 

এজন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও শিক্ষকদের শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়াতে বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি। এছাড়া যেসকল বিশ্ববিদ্যালয় এখনো অনলাইনে তাদের পাঠদান শুরু করেনি তাদের সবাইকে অনতিবিলম্বে সকল ক্লাস অনলাইনে পাঠদান শুরু করতে বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী।

 

আজ শনিবার (২৯ আগস্ট) বিকালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

তিনি বলেন, অনলাইনে ক্লাসের জন্য আমরা যে অ্যাপ চালু করেছি তা অনেকে অত্যন্ত সাফল্যের সাথে ব্যবহার করছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের ডিভাইসসহ বিভিন্ন সমস্যা থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে তাদের পাশে দাঁড়াতে পারে।

 

শিক্ষামন্ত্রী গ্রাম, উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে যেসকল শিক্ষার্থী ইন্টারনেট সমস্যায় আছেন তাদের নিকটস্থ সরকারিসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যোগাযোগ করে সেবা নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। এছাড়া সরকারের পক্ষ হতে সাশ্রয়ী মূল্যে শিক্ষার্থীদের ইন্টারনেট প্যাকেজ দেওয়ার জন্য টেলকো কম্পানির সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

 

১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিলো বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটিকে হত্যা করার জন্য। একাত্তরের পরাজিত শক্তি, দেশি বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা এই হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছিলো। বঙ্গবন্ধু ও তাঁর ঘনিষ্টতম সহযোগীদের হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে পাকিস্তানের অন্ধকারযুগে ফিরিয়ে নেওয়ার অপচেষ্টা করা হয়েছিলো।

 

তিনি বলেন, আমরা সেইসময় দেখেছি দল থেকে শুরু করে রাজনৈতিক ব্যবস্থা, নির্বাচনী ব্যবস্থা সমস্ত কিছুকে তখন ধ্বংস করা হয়েছিল। এই বাংলাদেশটি মৃত্যুপুরীতে পরিনত হয়েছিলো। সমস্ত হত্যা, ক্যু আর ষড়যন্ত্র এই নিয়ে যে অপরাজনীতি, সেটি চলেছে দীর্ঘসময়।

 

কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও সংবিধানের চার নীতিকে ধারণ করে আমরা এগিয়ে চলছি। আমাদের এই চলার পথে সবসময় সজাগ থাকতে হবে।

 

কারণ ষড়যন্ত্রকারীরাই একাত্তরের হত্যাকারী, তারাই আবার পচাত্তরের হত্যাকারী। এই হত্যাকারীরা বারবার ছোবল হেনেছে। বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হত্যা করার জন্য তারা অন্তত ২১ বার চেষ্টা চালিয়েছে।

 

ভার্চুয়াল সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ মাহবুব হোসেন। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য দেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মোঃ আসাদুজ্জামান।