আজ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

নিরাপরাধ লিটনের মুক্তির বিষয়ে হাইকোর্টে আদেশ কাল

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ দুইবছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি পলাতক লিটনের পরিবর্তে আটমাস ধরে কারাবন্দি নিরাপরাধ (!) লিটনের মুক্তির বিষয়ে হাইকোর্ট আগামীকাল মঙ্গলবার আদেশ দেবেন। বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেবেন।

 

লিটনের মুক্তির জন্য কারাবন্দি লিটন এবং মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) করা এক রিট আবেদনের ওপর আজ সোমবার শুনানি শেষে আদেশের জন্য দিন নির্ধারণ করেন আদালত। রিট আবেদনকারীপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না, ইয়াদিয়া জামান ও মো. শাহিনুজ্জামান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাসগুপ্ত।

 

রাজধানী পল্টন থানার একটি মামলায় দুইবছরের দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে ভোলার লালমোহন উপজেলার ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের চতলা গ্রামের মৃত নুর ইসলামের ছেলে লিটনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। কিন্তু অভিযোগ উঠেছে, মূল আসামির পরিবর্তে নিরাপরাধ ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। এ নিয়ে ‘শুধু নাম ঠিকানা মিলে জেল খাটছেন দিনমজুর’ শিরোনামে গত ২২ আগস্ট একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

 

এই প্রতিবেদন যুক্ত করে নিরাপরাধ লিটনের মুক্তি চেয়ে গত ২৪ আগস্ট রিট আবেদন করা হয়। আবেদনে লিটনের পরিচয় নিশ্চিতকরণে তাকে সশরীরে অথবা ভার্চুয়ালি হাইকোর্টে হাজির করা, তাৎক্ষণিক মুক্তি দেওয়া এবং তার আটকাদেশ অবৈধ ঘোষণার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

 

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী সাজাপ্রাপ্ত আসামি আর কারাবন্দি লিটনের পিতার নাম, গ্রাম-সবই এক। শুধুই পার্থক্য বয়সের। মামলার নথি অনুযায়ী সাজাপ্রাপ্ত লিটনের বর্তমান বয়স ৪১ বছর। আর কারাবন্দি লিটনের বয়স এখন ৩০ বছর। এছাড়া সাজাপ্রাপ্ত লিটনের পিতা মারা গেছেন ৩০ বছর আগে। আর বন্দি লিটনের পিতা মারা গেছেন ১০ বছর আগে।

 

ভারত ও পাকিস্তানের তৈরি আমদানি নিষিদ্ধ চেতনানাশক ট্যাবলেটসহ লিটন, শামীম ও আরশাদ মিয়াকে ২০০৯ সালের ২৮ জুন পল্টন থানার আহাদ পুলিশ বক্সের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ ঘটনায় পল্টন থানায় মামলা হয়। পরে তারা আদালত থেকে জামিন নিয়ে আত্মগোপন করে। তবে এই মামলায় বিচার শেষে ২০১৪ সালের ২২ অক্টোবর ঢাকা মহানগর বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-২ আসামিদের দুই বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেয়। এই রায়ের পর গতবছর ৭ ডিসেম্বর লিটনকে (নিরাপরাধ!) গ্রেপ্তার করে পুলিশ।