আজ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

জুসে কীটনাশক মিশিয়ে পান করাল স্বামী

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ প্রেম করে বিয়ের ৬ মাসের মধ্যেই জুসের বোতলে কীটনাশক মিশিয়ে স্ত্রীকে খাইয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার ভোররাতে চাটমোহর উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের জগতলা গ্রামের নিজ বাড়িতে গৃহবধূর মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ নিহতের বাড়িতে গিয়ে অভিযুক্ত স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে।

নিহত গৃহবধূ আরিফা খাতুন (১৭) উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের জগতলা গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের মেয়ে এবং অভিযুক্ত স্বামী রুবেল হোসেন (১৮) আটঘরিয়া উপজেলার চাঁদভা ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের বাহাজ উদ্দিনের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও থানা সূত্রে জানা গেছে, ৬ মাস আগে প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে আরিফাকে বিয়ে করে রুবেল হোসেন। মেয়ের পরিবার থেকে বিয়ে মেনে নিলেও ছেলের পরিবার প্রথম থেকেই মেয়েটিকে নানাভাবে নির্যাতন শুরু করে। ছেলের মা, খালা, মামারা যৌতুকের জন্য মেয়েটিকে বিভিন্নভাবে চাপ দিতে থাকে। মেয়েটি প্রেম করে বিয়ে করেছে বলে বাবার বাড়িতে বিষয়টি বলতে অপারগতা প্রকাশ করে। এরই ফলশ্রুতিতে গত ২৫ আগস্ট রাতে ছেলের মায়ের পরিবারের সদস্যদের চক্রান্তে দুটি জুসের বোতলের একটিতে কীটনাশক মিশিয়ে ছেলে রুবেলের কাছে দিয়ে আসে তার মা। এ সময় ছেলেকে বলা হয় সে কোন বোতল জুস খাবে আর তার বউ কোনটা খাবে। এরপর তারা দুজনে বোতলের জুস খেয়ে রাতে ঘুমিয়ে পড়ে।

এরপর মধ্যরাত থেকে শুরু হয় আরিফার শরীরে বিষক্রিয়া এবং সে ক্রমশ অসুস্থ হয়ে পড়ে। সকালে তাকে অসুস্থ অবস্থায় স্থানীয় চিকিৎসকের নিকট নেওয়ার পরে সেখান থেকে পাবনা জেনারেল হাসপাতাল এবং পরে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। বাড়িতে নিয়ে আসার পরে গত ৫ দিন মেয়েটি অসহ্য যন্ত্রণায় ছটফট করে অবশেষে মঙ্গলবার ভোররাতে মারা যায়।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আমিনুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ঘটনাটি জানার পরেই নিহত গৃহবধূর বাড়িতে ফোর্স পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত মেয়েটির স্বামীকে আটক করা হয়েছে এবং লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।