আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

মোদি ভুলতে পারবেন না প্রণবের আশীর্বাদ, ৭ দিনের শোক ঘোষণা

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ ইতিহাস, রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও আইনে পড়াশোনার পাঠ চুকিয়ে ভারতের রাষ্ট্রপতির মসনদে বসা প্রথম বাঙালি প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে দেশটিতে সাতদিনের শোক ঘোষণা করেছে ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) সরকার। ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে সোমবার সন্ধ্যার দিকে এই শোক ঘোষণা করা হয়।

সোমবার বিকেলের দিকে রাজধানী নয়াদিল্লির আর্মি রিসার্চ এন্ড রেফারাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান প্রণব মুখার্জি। তার মৃত্যুতে দেশ এবং দেশের বাইরে শোকের ছায়া নেমে এসেছে; বিশেষ করে বাঙালি জনগোষ্ঠীর মাঝে।

প্রণবের মৃত্যুতে যারা প্রথম দিকে শোক জানিয়েছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভারতের সাবেক এই রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে একাধিক টুইট করে স্মৃতিচারণ এবং শোক প্রকাশ করেছেন তিনি।

এক টুইট বার্তায় ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতায় আসার পর প্রণবের আশীর্বাদ, পদধূলি নেয়ার সুখস্মৃতি স্মরণ করে মোদি বলেছেন, ভারতরত্ন শ্রী প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে পুরো ভারত শোক প্রকাশ করছে। আমাদের জাতীয় উন্নয়নের ধারায় অনন্য স্বাক্ষর রেখে গেছেন তিনি।

লিখেছেন, একজন অসামান্য জ্ঞানী, একজন গৌরবময় রাষ্ট্রনায়ক, যিনি সব ধরনের রাজনীতিতে সম্মানিত এবং সমাজের সর্বত্রই প্রশংসিত ছিলেন।

প্রণবের একমাত্র মেয়ে শর্মিষ্ঠা মুখার্জি এক আবেগঘন টুইট করেছেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথে ঠাকুরের বিখ্যাত একটি কবিতার লাইন ‘সবারে আমি প্রণাম করে যাই’ উল্লেখ করে তিনি লিখেছেন, বাবা, আপনার প্রিয় কবির একটি চরণ উদ্ধৃত করে সবার প্রতি আপনার বিদায় বাণী তুলে ধরছি। দেশ ও জাতির সেবায় আপনার জীবন ছিল পরিপূর্ণ, অর্থবহুল। আপনার মেয়ে হিসেবে জন্ম নিয়ে নিজেকে আমি ভাগ্যবতী মনে করছি।

গত ৯ আগস্ট নয়াদিল্লির রাজাজি মার্গের বাসভবনের বাথরুমে পড়ে গিয়ে মাথায় গুরুতর আঘাত পান প্রণব মুখার্জি। পরদিন তাকে নয়াদিল্লির আর্মি রিসার্চ অ্যান্ড রেফারাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আঘাতের ফলে তার মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ায় চিকিৎসকরা অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন।

অস্ত্রোপচারের আগে করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে দেশটির সাবেক এই রাষ্ট্রপতির। তখন থেকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন প্রণবের শারীরিক অবস্থার কোনও উন্নতি হয়নি। ৮৪ বছর বয়সে ফুসফুসের সংক্রমণের কারণে ‘সেপটিক শক’ থেকে গভীর কোমায় ছিলেন তিনি।

সোমবার (৩১ আগস্ট) বিকেলের দিকে নয়াদিল্লির আর্মি রিসার্চ অ্যান্ড রেফারাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

দুই পুত্র ও এক কন্যার জনক প্রণব মুখার্জির স্ত্রী প্রয়াত শুভ্রা মুখার্জি ছিলেন বাংলাদেশের নড়াইলের মেয়ে। ১৯৯৬ সালে প্রণব মুখার্জি তার কন্যা শর্মিষ্ঠা মুখার্জিকে নিয়ে শেষবারের মতো এই গ্রামে বেড়াতে এসেছিলেন।