আজ ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৪শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

যে বস্তুর কাছেই ঠিকতে না পারার আশঙ্কা ভারতের যুদ্ধবিমান রাফালের

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদকঃ গত জুলাইয়ের শেষদিকে ভারতে আসার পর আগামী ১০ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে দেশটির বিমান বাহিনীতে যুক্ত হতে চলেছে ভয়ঙ্কর যুদ্ধবিমান রাফালে।

আম্বালা এয়ারবেসে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। এই পরিস্থিতিতে একটি কারণই কিন্তু চিন্তার ভাঁজ ফেলছে ভারতীয় বিমান বাহিনীর কর্মকর্তাদের কপালে। না, চীন বা পাকিস্তান নয়, আম্বালা বিমানঘাঁটির কাছে আকাশে উড়ে বেড়ানো পাখিরাই মূলত তাদের চিন্তার কারণ। কোনওক্রমে রানওয়ে থেকে ওঠা–নামার সময় রাফালের সঙ্গে সংঘর্ষ হলে বড়সড় ক্ষতি হতে পারে নয়া এই যুদ্ধবিমানের। যদিও ইতিমধ্যে এই সমস্যা সমাধানে পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে।

আসলে আম্বালা এয়ারবেসের (কাছেই গজিয়ে ওঠা আবর্জনা ফেলার জায়গা দীর্ঘদিন ধরে অপরিষ্কার পড়ে আছে। ফলে সেখানে প্রচুর পরিমাণে আবর্জনা জমেছে। আর এই আবর্জনার স্তূপেই খাবারের খোঁজে আসে পাখিরা। তাদের সঙ্গেই যেকোনও মুহূর্তে ধাক্কা লাগতে পারে যুদ্ধবিমানের। আর সেক্ষেত্রে বড়সড় ক্ষতি হতে পারে নয়া এই যুদ্ধবিমানের। ঝুঁকি রয়েছে বিমানচালকের প্রাণেরও।

জানা গেছে, ইতিমধ্যে হরিয়ানার মুখ্যসচিবকে এই প্রসঙ্গে চিঠি লেখা হয়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনীর পক্ষ থেকে। তাতে সাফ বলা হয়েছে, অবিলম্বে এই আবর্জনার স্তূপ সরাতে হবে। না হলে খাবারের সন্ধানে এয়ারবেসের নিকটবর্তী আকাশে পাখির সংখ্যা রোজ বাড়ছে। এর ফলে এয়ারবেসে থাকা যুদ্ধবিমানগুলো ওঠা–নামায় সমস্যা হচ্ছে। যেকোনও মুহূর্তে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ক্ষতি হতে পারে সদ্য কেনা দামী রাফালেরও। ঝুঁকি থাকছে পাইলটেরও। তাই যত দ্রুত সম্ভব ওই এলাকা থেকে আবর্জনা সরাতে হবে।

এছাড়া খেয়াল রাখতে হবে এয়ারবেসের দশ কিলোমিটার এলাকায় আকাশে যেন কোনওভাবেই পাখিদের বাড়বাড়ন্ত না দেখা যায়। সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে স্থানীয় মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনকে।