আজ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

লাদাখে সীমান্ত সংঘাত মেটাতে পাঁচ দফা পরিকল্পনায় একমত চীন-ভারত

বৃহস্পতিবার রাতে মস্কোয় চিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই’র সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে কথা হয় এস জয়শংকরের।

প্রথমবার্তা, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: চীন-ভারত সীমান্ত নিয়ে পূর্ব লাদাখে যে সংঘাতের আবহ তৈরি হয়েছে, তা থেকে বেরিয়ে আসতে দু-দেশই পাঁচ দফা পরিকল্পনা বিষয়ে একমত হয়েছে।

তার মধ্যে অন্যতম হল, সীমান্ত ব্যবস্থপনা নিয়ে বর্তমান দু-দেশের মধ্যে যে সব চুক্তি ও প্রোটোকল রয়েছে, তা দু-পক্ষই অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলবে। সীমান্তে শান্তি ও স্থিতাবস্থা যাতে বজায় থাকে, দু-দেশই সেই মতো চলবে। উত্তেজনা চড়তে পারে এমন কোনও পদক্ষেপ করা থেকে দু’পক্ষই নিজেদের বিরত রাখবে। ভারতীয় গণমাধ্যম এইসময়ের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে মস্কোয় চিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই’র সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে কথা হয় এস জয়শংকরের। সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশনের (SCO) সদস্য দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা মিলিত হয়েছেন মস্কোয়। ভারত ও চীন দু-দেশই SCO-র সদস্য। এই সাংহাই বৈঠকের বাইরেই ভারত ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাদাখ সমস্যা নিয়ে আলাদাভাবে বৈঠকে বসেছিলেন।

 

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকরের সঙ্গে প্রায় দু-ঘণ্টা আলোচনা করেন ওয়াং ই। সেই আলোচনার প্রেক্ষিতেই পাঁচটি বিষয়ে তারা একমত হয়েছেন বলে এই সময়ের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়।

চলতি বছরের মে মাস থেকেই লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর একাধিক জায়গায় চীনের পিপল’স লিবারেশন আর্মির সঙ্গে ভারতীয় সেনার সংঘাত বাধে।  এরমধ্যে ১৫ জুন রাতে গালওয়ান উপত্যকায় দু’পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘাতে ২০ ভারতীয় সেনা নিহত হয়।

ভারত-চীন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক শেষে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে দু-দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় যৌথভাবে সংবাদ বিবৃতি দেয়। ওই বিবৃতিতে মোট পাঁচটি বিষয়ের উল্লেখ রয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, খোলামেলা পরিবেশে দুই বিদেশমন্ত্রীর মধ্যে গঠনগত আলোচনা হয়েছে। লাদাখ সীমান্তে বর্তমানে যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তাতে আখেরে কোনও পক্ষেরই লাভ হবে না। এ বিষয়ে দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীই একমত হয়েছেন। তাই তারা সম্মত হন, দু-দেশের সীমান্ত সেনা সমস্যার সুরাহায় আলোচনা চালিয়ে যাবেন। মোতায়েন করা সেনা দ্রুত সরিয়ে নেওয়া হবে। দুই সেনাই যথাযথ দূরত্ব বজায় রাখবে। উত্তেজনা বাড়ে, এমন কিছু করা থেকে তারা বিরত থাকবে।