আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার নিচে নামলেও বাঁধে ভাঙ্গন

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: উজানের পানি প্রবাহ কমার কারণে শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তিস্তা নদীর পানি নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে বিপৎসীমার ২৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ওই পয়েন্টে বিপৎসীমা ৫২ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার। পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) গেজ পাঠক (পানি পরিমাপক) মো. নুরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

 

তবে পানি কমলেও উপজেলার টেপা খড়িবাড়ি ইউনিয়নের চড় খড়িবাড়ি গ্রামের একটি বাধ সহ উপজেলার একাধিক ইউনিয়নের বিভিন্ন বাঁধ ও রাস্তা-ঘাটে ছোট-বড় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। অনেক গ্রামের রাস্তা-ঘাট এখনো পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে বলে জনপ্রতিনিধি সূত্রে জানা গেছে।এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে একই পয়েন্ট দিয়ে বিপৎসীমার ২৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছিলো। এসময় ভয়াবহ ঢলে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে তিস্তা পাড়ের মানুষ।

 

পাউবোর উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পানি শাখা) মো. আমিনুর রশিদ জানান, ভারতের পাহাড়ি ঢল ও উজানের ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে তিস্তা নদীর পানি ওঠা-নামায় ডালিয়া পয়েন্টে বন্যা দেখা দেয়।

 

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানায়, সর্বশেষ শুক্রবার দুপুর ২টার পরিমাপে তিস্তার পানি বিপৎসীমার ২৮ সেন্টিমিটার নিচে নেমে এসেছে। ফলে তিস্তার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটেছে। এতে স্বস্তি ফিরেছে নদী পাড়ের মানুষের মধ্যে। তবে সপ্তাহব্যাপী টানা বৃষ্টিপাতের ফলে জনজীবন নাকাল হয়ে পড়েছে।

 

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, উজানের পানি প্রবাহ একটু কমে আসায় শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিপৎসীমার (৫২ দশমিক ৬০)২৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহ হয়েছে।ওই পয়েন্টে সকাল ৯টায় পানি বিপৎসীমার ২৭ সেন্টিমিটার ওপরে ছিল। ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপৎসীমার নিচে নামলেও বন্যা পরিস্থিতি সামাল দিতে ব্যারাজের ৪৪ স্লুইস গেট (জলকপাট) খুলে রাখা হয়েছে।