আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সিলেট এমসি কলেজে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের কর্তৃক গৃহবধুকে গণধর্ষণের প্রতিবাদ ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে রাজধানীতে ছাত্রশিবিরের বিক্ষোভ মিছিল

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: সিলেট এমসি কলেজের ছাত্রাবাসের সামনে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের কর্তৃক স্বামীকে আটক রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনার প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।

 

আজ বিকাল ৫টায় কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক রাশেদুল ইসলামের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি রাজধানীর মতিঝিলের শাপলা চত্ত¡র থেকে শুরু হয়ে ইত্তেফাক মোড়ে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়।

 

এতে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ কয়েক হাজার নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করেন।মিছিলোত্তর সমাবেশে ছাত্রশিবিরের নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকারদলীয় সন্ত্রাসীদের একের পর এক নৃশংস ও লোমহর্ষক ঘটনায় দেশবাসী আজ আতঙ্কিত।

 

বিচারহীনতার কারণে ধর্ষণ এখন মহামারিতে পরিণত হয়েছে।গত শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় সিলেট এমসি কলেজ প্রাঙ্গণে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে জোরপূর্বক গণধর্ষণ করে ছাত্রলীগের চিহ্নিত ৬ সন্ত্রাসী।

 

একটি স্বনামধন্য কলেজের ভেতরে এমন কলঙ্কজনক ঘটনার ব্যাপারে ঘৃণা জানানোর ভাষা আমাদের জানা নেই।করোনার কারণে যেখানে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে সেখানে কিভাবে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা ছাত্রাবাসের ভেতরে বহাল তবিয়তে ছিল তা নিয়েও জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

 

এমসি কলেজের হলে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের অবৈধ অবস্থান ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের পেছনে কলেজ কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের মদদ রয়েছে তা আজ দিবালোকের মত স্পষ্ট। এর আগেও এমসি কলেজের ঐতিহ্যবাহী ছাত্রাবাসগুলোকে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে জ্বালিয়ে দিয়ে উল্লাস করেছিল।

 

যার মর্মান্তিক দৃশ্য গণমাধ্যমের কল্যাণে দেশবাসী দেখেছে। এ ঘটনার সারাদেশে নিন্দার ঝড় উঠেছিল। কিন্তু আজ পর্যন্ত সেই বর্বরতার কোন বিচার হয়নি। ফলে আবারো একই জায়গায় আরেকটি কলঙ্কজনক নজির সৃষ্টি করেছে ছাত্রলীগের নরপশুরা।

 

নেতৃবৃন্দ বলেন, মূলত দলীয় পরিচয়ের কারণে সরকারের বিচারহীনতা ও সরাসরি প্রশ্রয়ে ধর্ষণের মত ঘৃন্য কাজ নির্বিঘেœ করে যাচ্ছে নরপিশাচরা। আর এসব অপকর্মে বেশির ভাগ সরকার-দলীয় সন্ত্রাসীরা জড়িত থাকার কারণে সরকার এমন জঘন্য বিষয়গুলো এড়িয়ে গেছে বরাবর।

 

এখন পর্যন্ত তার কোনটিরই সুষ্ঠু বিচার হয়নি। ফলে উৎসাহ পেয়ে নরপিশাচদের লোমহর্ষক অপকর্ম বেড়েই চলেছে। যার প্রমাণ, এমসি কলেজে ধর্ষণের ঘটনার পরপরই চট্টগ্রামে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষনের শিকার হয়েছে এক তরুণী। সাভারেও ধর্ষণের স্বীকার হয়েছে আরেক