আজ ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

আগামী ৮ দিনের মধ্যে যেসব শিক্ষকদের তথ্য চেয়ে জরুরি নির্দেশ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: ২০০৫-২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে কমিটির মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকদের নিবন্ধন সনদের বিস্তারিত তথ্য চেয়েছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)।

 

এনটিআরসিএর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক নির্দেশনায় এ তথ্য জানানো হয়।নির্দেশনায় বলা হয়, কমিটির মাধ্যমে ২০০৫-২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম, ইআইআইএন নম্বর, নিয়োগের তারিখ, যোগদানের তারিখ, পদের নাম, বিষয়, নিবন্ধন পরীক্ষার রোল নম্বর, ব্যাচ, নিবন্ধনের সাল ইত্যাদি উল্লেখ করে সুস্পষ্ট তালিকা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের কাছে পাঠাতে হবে।

 

আগামী ১০ অক্টোবরের মধ্যে তা এনটিআরসিএতে পাঠাতে হবে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের।জানা যায়, সারাদেশে জালসনদধারী শত শত শিক্ষক বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন।

 

২০০৫ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত শত শত শিক্ষক জালসনদ নিয়ে কমিটির মাধ্যমে ঘুষ দিয়ে নিয়োগ পেয়ে এমপিওভুক্ত আছেন। বছরের পর বছর তারা এমপিও বাবদ অবৈধভাবে ভোগ করছেন সরকারের কোটি কোটি টাকা।

 

অপরদিকে নিবন্ধিত প্রার্থীরা শিক্ষক পদে নিয়োগ পাওয়ার আশায় দীর্ঘদিন অপেক্ষা করছেন। কালেভদ্রে প্রতিষ্ঠান সরকারি হলে জাল সনদধারী শিক্ষকদের কু-কর্মের কথা নজরে আসে।

 

আর তা না হলে শিক্ষা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে ঘাপটি মেরে থেকে এমপিওভোগ করছেন তারা। জালিয়াত শিক্ষকরা সরকারের বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতির সাথে সাথে জাতির অপূরণীয় ক্ষতিসাধন করছেন।

 

যদিও জালসনদধারী শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বারবারই জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণের কথা জানিয়েছেন বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ।