আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

পাকিস্তানের বিতর্কিত মানচিত্র, এসসিওর বৈঠকে ভারতের প্রতিবাদ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:  সীমান্ত সঙ্ঘাত নিয়ে নয়াদিল্লি এবং বেইজিংয়ের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। এরই মধ্যে গত ১৫ সেপ্টেম্বর মস্কোয় অনুষ্ঠিত সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশন (এসসিও)-এর সদস্য দেশগুলোর জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের বৈঠকে পাকিস্তান ভারতীয় ভূখণ্ডকে অন্তর্ভুক্ত করে বিতর্কিত মানচিত্র প্রদর্শন করলে প্রতিবাদে ওয়াকআউট করে ভারত।

 

বৈঠকে পাকিস্তানকে ওই বিতর্কিত মানচিত্র পেশ না করার জন্য বারবার অনুরোধ জানিয়েছিল আয়োজক দেশ রাশিয়া। কিন্তু তাতে কর্ণপাত করেননি ইসলামাবাদের প্রতিনিধি।

 

গত ৪ জুন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান একটি নতুন মানচিত্র প্রকাশ করেন। সেখানে কাশ্মীর, লাদাখের একাংশ এবং গুজরাটের একাংশ পাকিস্তানের বলে দাবি করা হয়।

 

ইমরান ওই ম্যাপ প্রকাশ করার পরেই নিজেদের চরম আপত্তির কথা জানায় ভারত। বস্তুত এর পরে ওই মানচিত্র নিয়ে পাকিস্তান আর কোনো কথা বলেনি। তবে মস্কোয় এসসিওর বৈঠকে সেই ম্যাপই ফের উপস্থাপন করেছে পাকিস্তান।

 

বৈঠক শুরুর পরেই ভারতের চোখে পড়ে বিতর্কিত মানচিত্রটি। সঙ্গে সঙ্গে ভারতের তরফে নিজেদের আপত্তির কথা জানানো হয়। ভারত জানায়, রাশিয়া বৈঠকের যে অ্যাডভাইজরি জারি করেছে, পাকিস্তান তা মানেনি।

 

নিজেদের প্রোপাগান্ডার জন্য বিতর্কিত ম্যাপ বৈঠকে নিয়ে এসেছে তারা। নিজেদের আপত্তির কথা রাশিয়াকে জানিয়ে বৈঠক ত্যাগ করেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল।

 

এ ঘটনার পরই ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব একটি কড়া বিবৃতি জারি করেন। সেখানে বলা হয়, ‘পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ইচ্ছাকৃতভাবে একটি কাল্পনিক মানচিত্র বৈঠকে দেখিয়েছেন।

 

গত কিছুদিন ধরেই ওই মানচিত্র নিয়ে পাকিস্তান প্রোপাগান্ডা চালানোর চেষ্টা করছে। রাশিয়ার জারি করা অ্যাডভাইজরি এবং বৈঠকের নিয়ম না মেনে কাজ করেছে পাকিস্তান।’ পরে আরো একটি বিবৃতিতে বলা হয়, বৈঠক নিয়ে বিভ্রান্তিকর বক্তব্য পেশ করেছে পাকিস্তান।

 

বিতর্কিত মানচিত্র উপস্থাপন করে বৈঠকের পরিবেশ নষ্ট করায় পাকিস্তানের সমালোচনা করে রাশিয়ার নিরাপত্তা উপদেষ্টা নিকোলাই পাত্রুশেভ জানিয়েছেন, এসসিও শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নেওয়ার জন্য তিনি ব্যক্তিগতভাবে সদস্য দেশগুলোর প্রতি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ।

 

তবে পাকিস্তান যা করেছে, তা রাশিয়া সমর্থন করে না এবং আশা করে যে পাকিস্তানের উসকানিমূলক কাজটি এসসিওতে ভারতের অংশগ্রহণকে প্রভাবিত করবে না।

 

পাকিস্তানের আগে নেপাল ভারতের তিনটি এলাকা নিজেদের মানচিত্রে দেখিয়েছিল। যা নিয়ে ভারতের সঙ্গে নেপালের প্রধানমন্ত্রী ওলির তীব্র বাদানুবাদ হয়। তবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নতুন মানচিত্র পেশ করার পর অনেক বিশেষজ্ঞই মনে করছেন এই বিতর্ক বহুদূর যাবে।সূত্র : জি নিউজ।