আজ ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ছাদে বাগান থাকলেই ১০% হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক : ক্রমাগত বৈশ্বিক উষ্ণতা রাজধানী ঢাকার টুঁটি চেপে ধরেছে। উষ্ণতা বাগে আনতে কমাতে হবে কার্বন নিঃসরণ, বাড়াতে হবে অক্সিজেন। ঢাকায় অক্সিজেনের মাত্রা বাড়াতে ছাদবাগান হতে পারে বড় উৎস।

 

এরই মধ্যে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ছাদবাগানের মালিকদের গৃহকর রেয়াতের আওতায় এনে তাঁদের উৎসাহিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে এই উদ্যোগ বাস্তবায়নের গতি অনেকটাই শ্লথ।

 

ছাদবাগান করেও গৃহকর রেয়াতের সুবিধা না পাওয়ায় বাড়ির মালিকদের আক্ষেপের কমতি নেই।জানা গেছে, ছাদবাগান করলে ১০ শতাংশ হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফের ঘোষণা দেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

 

গত ২৫ আগস্ট মিরপুর ১০ নম্বরে মুকুল ফৌজ মাঠে এক লাখ চারা রোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন করার সময় এমন ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি। এর আগে ২০১৬ সালে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) তৎকালীন মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন ছাদবাগান করলে ট্যাক্স রেয়াত দিয়েছিলেন।

 

২০১৬ সালের জুনে এক হাজারের বেশি বাড়ির মালিক ছাদবাগান করে কর মওকুফের সুবিধা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ডিএসসিসির কর কর্মকর্তারা। তবে ২০১৬ সালের জুনের পর তৎকালীন মেয়রের সময়েই সেই সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

 

ছাদবাগানের জন্য ২০১৬ সালের ওই ছাড় ছাড়া অন্য কোনো সময় কোনো ধরনের সুবিধা মেলেনি। শুধু মৌখিক ঘোষণার মধ্যেই তা সীমাবদ্ধ ছিল। কারণ সিটি করপোরেশন ১০ শতাংশ কর রেয়াত দিতে চাইলে বোর্ডসভায় অনুমোদনের পর তা স্থানীয় সরকার বিভাগে পাঠাতে হয়।

 

সরকারের অনুমোদন ছাড়া ট্যাক্স মওকুফের সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন অনেকে। তবে ছাদবাগানের মালিকদের সেই সুবিধা দিতে কিছুটা অগ্রগতি শুরু করেছে ডিএনসিসি। ডিএসসিসি এখনো এ ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

 

ডিএনসিসি কর্মকর্তাদের মতে, ছাদবাগানের জন্য হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফের ঘোষণার পর একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন মেয়র। পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়, নগর পরিকল্পনাবিদ, সুধীসমাজ এবং পরিবেশবাদী সংগঠনের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি কমিটি গঠনের কথা বলেছিলেন মেয়র আতিকুল ইসলাম। তবে এখনো বোর্ডসভায় তা পাস হয়নি।

 

বোর্ডসভায় পাস করানোর পর সিদ্ধান্তটি স্থানীয় সরকার বিভাগের অনুমোদন করিয়ে নেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের রাজস্ব বিভাগের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘বোর্ডসভায় ১০ শতাংশ কর রেয়াতের বিষয়টি অনুমতি নেওয়ার পরও মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাসহ যারা রেয়াত সুবিধা উপভোগ করেন, তাঁদের বিষয়টিও মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নিতে হয়েছে।’

 

এ ব্যাপারে ডিএনসিসির মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকা শহরে অক্সিজেনের মাত্রা বাড়ানো খুব জরুরি। ছাদবাগানের মাধ্যমে অক্সিজেনের পরিমাণ বাড়ানো সম্ভব। তাই যাঁরা সুসজ্জিত বাগান করবেন, তাঁদের ১০ শতাংশ কর কমানোর ব্যাপারে ঘোষণা দিয়েছি। একটি কমিটি গঠন করতে এরই মধ্যে আমি কর্মকর্তাদের বলেছি। বোর্ডসভায় বিষয়টি উত্থাপন করা হবে।’

 

এদিকে সবুজায়ন ও ছাদবাগানের বিষয়ে নগরবাসীকে আকৃষ্ট করতে ডিএসসিসি মেয়র আগ্রহী। ট্যাক্স রেয়াতের বিষয়টি নিয়ে এখনো দাপ্তরিক কোনো কাজ শুরু হয়নি। তবে বিষয়টি মেয়রের দৃষ্টিতে আনার ব্যাপারে বলেছেন কর্মকর্তারা।ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা  এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী বলেন, ‘আমি নতুন এসেছি। হোল্ডিং ট্যাক্স রেয়াতের কোনো বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে আমি এ বিষয়ে খোঁজ নেব।’