আজ ১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সংকট উত্তরণে প্রগতিশীল ও দেশপ্রেমিক শক্তির বৃহত্তর ঐক্যের ডাক

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:সংকট উত্তরণে প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক ও দেশপ্রেমিক শক্তির বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি। পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির দুই দিনব্যাপী সভার শেষদিনে সমাপনী অধিবেশন থেকে এই আহ্বান জানানো হয়।

 

আজ শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। পার্টির রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য আনছার আলী দুলালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, কেন্দ্রীয় নেত্রী বহ্নিশিখা জামালী, সরদার রইসউদ্দীন, নির্মল বড়ুয়া মিলন, সাইফুল ইসলাম, মাহমুদ হোসেন, স্নিগ্ধা সুলতানা ইভা, ইমরান হোসেন, জুই চাকমা, অরবিন্দু বেপারী বিন্দু প্রমুখ।

 

সভায় বলা হয়, নিত্যপণ্যের বাজারে লাগামহীন উর্ধ্বগতি স্বল্প আয়ের সাধারণ মানুষের জীবনে বিপর্যয় নিয়ে এসেছে। বাজার নিয়ন্ত্রণে কার্যকরি তদারকি ও নিয়ন্ত্রণ না থাকায় ভোগ্যপণ্যের বাজারে চরম স্বেচ্ছাচারিতা চলছে।

 

বাজার সিন্ডিকেটের দাপটে মানুষ দিশেহারা। মোটা চাল, কাঁচা মরিচ, ডিম থেকে শুরু করে প্রায় প্রতিটি ভোগ্যপণ্যের দামে আগুন জ্বলছে। অথচ সরকার যেন কুম্ভকর্ণের মত নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছে।

 

সভায় আরো বলা হয়, করোনা ও বন্যা দুর্যোগের কারণে ইতিমধ্যে তিন থেকে সাড়ে তিন কোটি মানুষ নতুন করে দারিদ্র সীমার নীচে নেমে এসেছে। এই পরিস্থিতি চলতে থাকলে এই বছরের মধ্যে আরো ৫০ লাধিক মানুষের দারিদ্রসীমার নীচে নেমে আসবে। এমতাবস্থায় দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলেও পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের কার্যকরি ও বিশ্বাসযোগ্য কোন পদপে নেই।

 

সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশ পরিচালনায় সরকারের রাজনৈতিক ও নৈতিক শক্তি না থাকায় সারা দেশে এক ধরনের নৈরাজ্য দেখা দিয়েছে। করোনা মহামারির সাথে দুর্নীতির মহামারিও একাকার হয়েছে।

 

মানুষের অসম্মান-অমর্যাদাও প্রকট হয়েছে। এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে দেশের প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দেশপ্রেমিক শক্তির বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলার বিকল্প নেই বলে তারা দাবি করেন।