আজ ১১ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

হাটহাজারীতে কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা হেলালের গাড়িবহরে ছাত্রদলের পদ বঞ্চিতদের হামলার অভিযোগ

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: চট্টগ্রামের হাটহাজরীতে কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-সম্পাদক ব্যারিস্টার মীর হেলাল উদ্দিনের গাড়িবহরে দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়েছে।

 

গতকাল মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি-রাঙ্গামাটি মহাসড়কের ফতেয়াবাদ স্কুলের সামনে এ ঘটনা ঘটে। হামলার শিকার ব্যারিস্টার হেলাল ভাইস-চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিনের পুত্র। সদ্য ঘোষিত উপজেলা ও পৌরসভা এবং কলেজ ছাত্রদলের কমিটির পদবঞ্চিতরা এ হামলা চালিয়েছে বলে জানা যায়।

 

হামলাকারীরা তার গাড়ি লক্ষ্য করে ইট-পাঠকেল ও ডিম নিক্ষেপ করেন এবং গাড়িবহরে থাকা ৩টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে বলে সূত্র জানিয়েছে। তবে এ ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি বলে বিএনপির নেতা মীর হেলাল স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান।

 

 

এদিকে এ ঘটনার আগে গত ৬ অক্টোবর (মঙ্গলবার) হাটহাজারী ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা নগরীর নাসিমন ভবনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়নের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করে। অনুষ্ঠিত এ বিক্ষোভ-সমাবেশ ও মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, দেশব্যাপী বিএনপিসহ সকল অঙ্গ সংগঠনকে তৃণমূল পর্যায়ের কমিটি করতে বলা হয়েছিল।

 

এ ধারাবাহিকতায় উত্তর জেলার আওতাধীন হাটহাজারীতে ইউনিট কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু ঘোষিত কমিটিগুলোতে এতদিন যারা আন্দোলন-সংগ্রামে ছিল, মামলা-হামলা ও গ্রেপ্তারে জর্জরিত হয়েছে তারা স্থান পায়নি। তাদের অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। বক্তারা অতি দ্রুত ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়েছিল পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা।

 

সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার মীর হেলাল তার গ্রামের বাড়ি হাটহাজারী পৌরসভার মিরেরখিল গ্রাম থেকে গাড়িবহর নিয়ে চট্টগ্রাম শহরের উদ্দেশে রওনা দেন। চট্টগ্রাম হাটহাজারী মহাসড়ক হয়ে নগরীতে ফেরার পথে বিকাল পৌনে ৪টার দিকে ফতেয়াবাদ স্কুলের নিকটে আকস্মিক এ হামলার শিকার হন। সদ্য ঘোষিত উপজেলা ও পৌরসভা এবং কলেজ ছাত্রদলের কমিটির পদবঞ্চিতরা এ হামলা চালিয়েছেন বলে জানা গেছে।

 

হাটহাজারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদ আলম গতরাতে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, খবর পেয়ে আমি দ্রুত ঘটনাস্থলে পুলিশ ফোর্স পাঠাই। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দুই পক্ষ দ্রুত সটকে পড়ে। গতরাত পর্যন্ত এ ঘটনায় কেউ থানায় কোনো অভিযোগ দায়ের করেননি।