আজ ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশীরাও বিভক্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: করোনার ধকল এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র। নিউ ইয়র্কসহ বিভিন্ন স্টেটে দ্বিতীয় ধাপে থাবা বসাতে শুরু করেছে কভিড-১৯। এমন পরিস্থিতিতেও নির্বাচনী উত্তাপ ছড়াচ্ছে দেশজুড়ে।

 

ডেমোক্র্যাটরা সতর্ক প্রচারণা চালালেও প্রচারে অনেকটাই বেপরোয়া রিপাবলিকানরা। দলটিকে দেখা যাচ্ছে দীর্ঘ বাইক শোভাযাত্রা পর্যন্ত করতেও।এরই মধ্যে ডাকযোগে এবং অগ্রিম ভোট দেওয়া শুরু হয়েছে; এ পর্যন্ত ভোট পড়েছে এক কোটির বেশি।

 

এর পরও আগামী ৩ নভেম্বরের চূড়ান্ত ভোটের দিন ঘিরে এখন প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যেও অনেক আলাপ-আলোচনা, আগ্রহ। স্থানীয় বাংলা ভাষার টিভি, পত্রিকা এ নিয়ে নানা সংবাদ পরিবেশন করছে।

 

সীমিত আকারে খুলে দেওয়া রেস্টুরেন্টেও নির্বাচনী আলোচনা চলছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে। প্রধান দুই দল ডেমোক্রেটিক ও রিপাবলিকানের সমর্থনে এখন বিভক্ত প্রবাসী বাংলাদেশিরাও।

 

বাংলাদেশের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ রানা আহমেদ নিউ ইয়র্কের কিউ গার্ডেন্সে থাকেন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ নির্বাচনী আমেজ পছন্দ করে। দীর্ঘ বন্দিত্বের পর সীমিত আকারে বাইরে বের হলেও নির্বাচন নিয়ে মানুষের মধ্যে বেশ উৎসাহ দেখা যাচ্ছে।

 

তবে যুক্তরাষ্ট্রে মানুষে মানুষে অনেক বিভক্তি দেখা যাচ্ছে, এটা কাম্য নয়। আমার মতে, যিনিই প্রেসিডেন্ট হোন না কেন, তাঁর উচিত হবে দেশটাকে ঐক্যবদ্ধ করার সর্বাত্মক চেষ্টা চালানো।’

 

করোনা মোকাবেলা এবারের নির্বাচনে প্রধান ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এ ক্ষেত্রে ব্যর্থ, এমন অভিযোগ ডেমোক্রেটদের। তবে প্রবাসীদের মধ্যে এ নিয়ে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

 

বেকার ভাতা, প্রণোদনা প্যাকেজসহ অর্থনৈতিক নানা সুবিধা পাওয়ায় অনেকে ট্রাম্প প্রশাসনের প্রশংসা করছেন। নিবন্ধিত রিপাবলিকান প্রিয়তোষ দে তাঁদের মধ্যে একজন।তিনি বলেন, ‘আসলে রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্পের কোনো বিকল্প নেই।’