আজ ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

মীর নাসির ও তার ছেলেকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতেই হচ্ছে

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক:সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপি নেতা মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন ও তার ছেলে ব্যারিস্টার মীর হেলাল উদ্দিনকে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার অনুমতি দেননি আপিল বিভাগ। হাইকোর্টের রায় অনুযায়ী নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ না করে আবেদন করায় আপিল বিভাগ তাদের আবেদন খারিজ করেছেন বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান। ফলে দুদকের মামলায় পিতা-পুত্রকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতেই হচ্ছে।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের এক নম্বর বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন। আদালতে মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন ও তার ছেলের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট এজে মোহাম্মদ আলী, ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন ও ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান।

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে মীর নাসির ও তার ছেলে মীর হেলালের বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের ৬ মার্চ গুলশান থানায় দুদক মামলা করে। এ মামলায় বিশেষ জজ আদালত একই বছরের ৪ জুলাই এক রায়ে মীর নাসির উদ্দিনকে ১২ বছর এবং মীর হেলালকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেয়। এ রায়ের বিরুদ্ধে তারা হাইকোর্টে পৃথক দুটি আপিল করেন। হাইকোর্ট ২০১০ সালের ১০ আগস্ট মীর নাসিরের এবং একই বছরের ২ আগস্ট মীর হেলালের সাজা বাতিল করে রায় দেন। হাইকোর্টের এ রায় বাতিল চেয়ে দুদক সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আপিল আবেদন করে। আপিল বিভাগ ২০১৪ সালের ৩ জুলাই এক রায়ে হাইকোর্টের রায় বাতিল করে পুনরায় হাইকোর্টেই বিচার করার নির্দেশ দেন। এ নির্দেশে পুনরায় শুনানি শেষে গতবছর ১৯ নভেম্বর রায় দেন হাইকোর্ট। রায়ে পিতা-পুত্রকে নিম্ন আদালতের দেওয়া সাজা বহাল রাখা হয়।

হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয় গত ৬ জানুয়ারি। ১৫৯ পৃষ্ঠার এ রায়ে পিতা-পুত্রকে নিম্ন আদালত রায়ের কপি পাবার তিনমাসের মধ্যে তাদের আত্মসমর্পন করতে বলা হয়। কিন্তু তারা নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ না করেই হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন।