আজ ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

নারী উদ্যোক্তাদের কোভিড-১৯ ক্ষতি উত্তরণে উদ্ভাবনী ডিজিটাল মডেলের সাথে সংযুক্ত করতে হবে—স্পীকার

প্রথমবার্তা, প্রতিবেদক: বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি বলেছেন, কোভিড-১৯ এর কারণে নারী উদ্যোক্তারা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নারী উদ্যোক্তাদের কোভিড-১৯ ক্ষতি উত্তরণে উদ্ভাবনী ডিজিটাল মডেলের সাথে সংযুক্ত করতে হবে। নারী উদ্যোক্তারা কিভাবে সরকার ঘোষিত প্রণোদনা থেকে লাভবান হতে পারেন তা নিয়ে সকলকে ভাবতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক স্বল্প সুদে যে ঋণ প্রদানের ব্যবস্থা করছে তাতে নারী উদ্যোক্তাদের সম্পৃক্ত হবার আহ্বান জানান স্পীকার।

আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স (আমচাম) আয়োজিত ‘উইমেন এন্টারপ্রিনিউরশিপ ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্যানেল ডিসকাশনে আজ প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন স্পীকার।

স্পীকার বলেন, নারী উদ্যোক্তাদের এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সামাজিক প্রতিবন্ধকতা, লিঙ্গ বৈষম্য, জ্ঞান ও পরিচালন দক্ষতার অভাব, প্রশিক্ষণ ও প্রযুক্তি সহায়তার অভাব ইত্যাদি সমস্যা রয়েছে। কিন্তু, নারীরা এসকল চ্যালেঞ্জকে সম্ভাবনায় পরিণত করে বিপুল উদ্যমে এগিয়ে চলেছে এবং নিজেদের প্রচেষ্টায় যথাযোগ্য স্থান করে নিচ্ছে।

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, নারীদের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা জরুরি কারণ মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। কোন সমাজই তার অর্ধেক মানবসম্পদকে কাজে না লাগিয়ে এগিয়ে যেতে পারে না। তাই সকল স্তর থেকেই নারীদের সর্বাত্নক সহযোগিতা ও উৎসাহ প্রদান করা জরুরি। বিশেষত, প্রাতিষ্ঠানিক সহযোগিতা, ব্যাংকিং সহায়তা, সুদমুক্ত ঋণ সহায়তাসহ প্রতিবন্ধতা দূরীকরণে যথাযথ আইন ও নীতি প্রণয়ন করতে হবে। এক্ষেত্রে, আমচাম আয়োজিত ‘উইমেন এন্টারপ্রিনিউরশিপ ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্যানেল ডিসকাশনটি গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন স্পীকার।

স্পীকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীদের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা অর্জনের জন্য সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কারিগরি শিক্ষা, আইসিটি প্রশিক্ষণ, ই-কমার্স ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সম্পর্কিত প্রশিক্ষণসহ ব্যাপক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে চলেছেন। করোনা মহামারির মধ্যেও ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের কথা মাথায় রেখে তিনি বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন যা তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও প্রজ্ঞার পরিচায়ক। চলমান অর্থনীতিকে আরো শক্তিশালী করতে সরকার সব সময় নারী উদ্যোক্তাদের পাশে রয়েছে বলে উল্লেখ করেন স্পীকার।

লুনা সামসুদ্দোহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিজিএমইএ-এর সভাপতি ড. রুবানা হক, প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের সিইও ও ডিরেক্টর উজমা চৌধুরী, বিশিষ্ট নারী উদ্যোক্তা রুবাবা দৌলা মতিন বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি মিয়াং টেম্বন, আমচাম এর এক্সিকিউটিভ কমিটি মেম্বার এন রাজাশেকারানসহ গণ্যমান্য বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিগণ ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন।